• শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮, ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৫
  • ||

এবার গ্যালারির ছাদে যৌনমিলন, ভাইরাল ভিডিও

প্রকাশ:  ১৪ আগস্ট ২০১৮, ১৪:৩২ | আপডেট : ১৪ আগস্ট ২০১৮, ১৪:৩৫
আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রিন্ট

ছাদে প্রকাশ্যে সঙ্গমে লিপ্ত যুবক-যুবতী। এমনই দৃশ্য ক্যামেরাবন্দি হয়েছে ভারতের মালদহ শহরের বৃন্দাবনী মাঠের পবিত্র সেন গ্যালারির ছাদে। এ দৃশ্য ভাইরাল হতে সময় লাগেনি। শোরগোল পড়ে যায় গোটা শহরে। চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে পৌরসভা প্রশাসনেও। ক্ষুব্ধ ক্রীড়াপ্রেমীরা।

অভিযোগ, দিনের পর দিন এমনটা চলছে। খারাপ হচ্ছে মাঠ ও গ্যালারির পরিবেশ। অশালীন পরিবেশের জেরে অভিভাবকেরাও ছেলেমেয়েদের মাঠে পাঠাতে চাইছেন না।

পাশের ছাদ থেকে ক্যামেরাবন্দি করা হয়েছে দৃশ্যটি। ভিডিও হিসেবে যা ভাইরাল হয়েছে। সেই ভিডিও থেকেই তুলে ধরা হয়েছে এই দৃশ্য। যাতে দেখা যাচ্ছে গোলাপি রঙের পোশাক পরে রয়েছে যুবতী। আর যুবকের পরনে রয়েছে নীল রঙের পোশাক। খোলা আকাশের নিচেই বেপরোয়া যৌনকর্মে লিপ্ত দু’জনে। আশেপাশের পরিস্থিতি সম্পর্কে বিন্দুমাত্র ভ্রুক্ষেপ নেই।

ভিডিওটি ভাইরাল হওয়ার পরই শোরগোল পড়ে গিয়েছে মালদহ শহরে। নিন্দায় সরব হয়েছেন ক্রীড়াপ্রেমী মানুষজন।

এ প্রসঙ্গে মালদহ জেলা ক্রীড়া সংস্থার প্রাক্তন সম্পাদক শুভাশিস সরকার বলেন, খেলার মাঠ ও গ্যালারিতে যদি প্রকাশ্যে এরকম অশালীনতা চলে তাতে মানুষের মধ্যে ক্ষোভ তৈরি হওয়াটাই স্বাভাবিক।‌ পবিত্র সেন গ্যালারিতে যে দৃশ্য ভাইরাল হয়েছে, তা জানতে পেরে সত্যি অবাক লাগছে। আমরা পুলিশ ও প্রশাসনের কাছে ওই মাঠের নজরদারি বাড়ানোর দাবি জানিয়েছি।

মালদহ শহরের প্রাণকেন্দ্র অতুল মার্কেট সংলগ্ন এলাকায় রয়েছে এই বৃন্দাবনী মাঠ। আর সেই খেলার মাঠে গড়ে উঠেছে পবিত্র সেন গ‍্যালারি। এই গ্যালারিটি দ্বিতল ভবন যুক্ত। গ্যালারির সিঁড়ি দিয়ে তিনতলার ছাদে অতি সহজেই ওঠা যায়। ছাদটি সীমানা পাঁচিল দিয়ে ঘেরা রয়েছে। আর এই গ‍্যালারির ছাদেই প্রশাসনের নজর নেই। সেই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে চলছে অবৈধ দেহ ব্যবসার কারবারও বলে বিভিন্ন মহল থেকে অভিযোগ উঠেছে।

দিনের আলোয় গ্যালারির ছাদেই যুগলের ভিড় ক্রমাগত বাড়ছে। আর ফাঁকা ছাদের সুযোগ নিয়ে সেখানে চলছে অশালীন কাজকর্ম। গ্যালারির ছাদে শুধু নয়, মাঠের মধ্যেও সন্ধ্যা নামতেই নানা ধরনের অসামাজিক কাজকর্ম চলছে। বিভিন্ন ধরনের নেশাখোরদের আড্ডা হয়ে উঠেছে বৃন্দাবনী খেলার মাঠ। পাশাপাশি দেহব্যবসাও নাকি চলছে। অভিযোগ, পুরসভা ও প্রশাসনের তরফ থেকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না।‌

ইংরেজবাজার পৌরসভার চেয়ারম্যান তথা বিধায়ক নীহাররঞ্জন ঘোষ বলেন, যে অভিযোগ উঠেছে তা মারাত্মক। তবে ওই খেলার মাঠটি প্রশাসন ও জেলা পরিষদের দায়িত্বে রয়েছে। কর্তৃপক্ষকেও এ ব্যাপারে জানানো হবে। তবে এই ধরনের অপরাধমূলক কারবার কোনোমতেই সহ্য করা হবে না। পুলিশ ও প্রশাসনকে পুরো বিষয়টিতে নজর দেওয়ার জন্য বলা হয়েছে।

/অ-ভি

গ্যালারি,ছাদে,যৌনমিলন,ভাইরাল,ভিডিও
apps