• শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১০ ১৪২৫
  • ||
  • আর্কাইভ

পাইকারিতে পেঁয়াজ মরিচের দাম কমলেও , খুচরায় প্রভাব পড়েনি

প্রকাশ:  ০৫ জানুয়ারি ২০১৮, ১৯:৫২
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট

নিত্যপণ্যের বাজারে দেশি পেঁয়াজ ও কাচা মরিচের দাম পাইকারিতে কিছুটা কমেছে এই সপ্তাহে। পাইকারীতে কমলেও খুচরা বাজারে এর প্রভাব পড়েছে সামান্যই। গত এক সপ্তাহে চওড়া মূল্যে বিক্রি হওয়া আরও কিছু পণ্যের দাম কমার পাশাপাশি মাছ-মাংস-শাক-সবজির বাজার মুল্য নতুন করে বাড়েনি।

নতুন বছরের প্রথম শুক্রবার ঢাকার কারওয়ান বাজার, মিরপুরের মনিপুর বাজার, মিরপুরের উত্তর পীরেরবাগ কাঁচাবাজার ঘুরে এমন চিত্র পাওয়া গেছে।

কারওয়ানবাজারে দেশি ও ভারতীয় পেঁয়াজের পাল্লা বিক্রি হয় ৩০০ টাকায়। অর্থাৎ প্রতি কেজি ৬০ টাকা করে বিক্রি হয় পেঁয়াজ। মিরপুরের পীরেরবাগ বাজারে দেশি পেঁয়াজেরে কেজি ৮৫ টাকা এবং ভারতীয় পেঁয়াজের দাম ছিল ৭০ টাকা।

এ বিষয়ে কারওয়ানবাজারের পেঁয়াজ বিক্রেতা মোফাজ্জলের বক্তব্য, বাড়ার খবর দ্রুত ছড়ালেও কমার খবরটি ব্যবসায়ীরা সহজে স্বীকার করেন না। মাঝখানে কয়েকদিন ব্যবসা করে নিতে চান।

বাজারে পেঁয়াজ কিনতে আসা রফিক বলেন, পেঁয়াজের দাম কেজিপ্রতি ১২০ টাকা থেকে ৬০ টাকায় অর্থাৎ অর্ধেক কমেছে। তবে এই কমা কমা নয়। মাত্র ২৫-৩০ টাকা থেকে দাম বৃদ্ধি শুরু হয়েছিল, এই বিষয়টি ভুলে গেলে চলবে না।
কারওয়ানবাজারে কাঁচা মরিচ বিক্রি হয় প্রতি কেজি ৬০ টাকা থেকে ৮০ টাকার মধ্যে। তবে ঢাকার অন্যান্য বাজারে কাঁচা মরিচের সর্বনিম্ন দাম কেজি প্রতি ৮০ টাকাই রয়েছে।

সবজির বাজারে লাউ ২৫ থেকে ৩৫ টাকা, গাজরের কেজি ৪০ টাকা, করলা ৩০ টাকা, টমেটো ৫০ থেকে ৬০ টাকা, শিম ৪০ টাকা, মুলা ১৫ টাকা, শালগম ১৫ টাকা দরে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে কারওয়ান বাজারে। শীতের শুরুতে প্রতি ডজন (১২টি) ফার্মের মুরগির ডিম ৭০ টাকায় নামলেও গত দুই সপ্তাহে তা বেড়ে ৮০ টাকায় উঠেছে। ব্রয়লার মুরগির কেজিও বিক্রি হচ্ছে ১৩৫ টাকা থেকে ১৪০ টাকায়, যা দীর্ঘদিন (নভেম্বর-ডিসেম্বর) ১২০ টাকা ছিল।

কারওয়ান বাজারে চালের দোকান মিরাজ অ্যান্ড সন্সের মালিক মিরাজ বলেন, প্রায় দুই সপ্তাহ আগে চালের দাম বস্তায় (৫০ কেজি) ১০০ টাকা করে বেড়েছিল। তবে এর পর থেকে স্থিতিশীল আছে। খুচরায় মিনিকেট ৬০ টাকা, বিআর আঠাশ ৫০ টাকা, নতুন ধানের নাজিরশাইল চাল ৬০ টাকা, পুরোনো নাজির ৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

সিটি জেনারেল এন্টারপ্রাইজের কর্মী শামীম বলেন, বাজারে ভারত থেকে আসা চাউলের দাম তুলনামূলক কম। ইন্ডিয়ার নূরজাহান মিনিকেট ৫৪ টাকা করে, আর মোটা চাল ৪০ থেকে ৪২ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে।


/তুহিন/