• শনিবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৭, ১ অগ্রহায়ণ ১৪২৪
  • ||
  • আর্কাইভ

বিএনপির জন্য সামনে অশনি সংকেত অপেক্ষা করছে: কাদের

প্রকাশ:  ১৪ নভেম্বর ২০১৭, ২১:০৯ | আপডেট : ১৪ নভেম্বর ২০১৭, ২২:০০
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট

আওয়ামী লীগের জন্য নয় বিএনপির জন্যই সামনে অশনি সংকেত অপেক্ষা করছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। মঙ্গলবার বিকালে গুলিস্তানের বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে শ্রমিক লীগের এক আলোচনা সভায় এ কথা বলেন তিনি।

বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার পদত্যাগপত্র গ্রহণ ‘অশনি সংকেত’ হিসেবে অভিহিত করেছে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন। এর প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে ওবায়দুল কদের বলেন, অশনি সংকেত বিএনপির জন্যই অপেক্ষা করছে। এভাবে নেতিবাচক রাজনীতি তাদেরকে আকড়ে ধরেছে।নির্বাচনে না এলে অশনি সংকেত তাদের জন্যই অপেক্ষা করছে।

বিচারপতি সিনহা ছুটি থেকে ফিরে বিনা প্রতিদন্দিতায় ১৫৪ জনের বৈধতার প্রশ্নে করা একটি রিটের শুনানি নিয়ে তাদের অবৈধ ঘোষণা করতে পারেন বলে সম্ভাবনা থাকায় তাকে পদত্যাগে বাধ্য করা হয়েছে বলে দাবি বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্যের বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় ওবায়দুল কাদের বলেন, মোশাররফ সাহেব যে বলেছেন ১৫৪ জন বিনা প্রতিদন্দিতায় এটা সঠিক নয়, বিনা প্রতিদন্ধিতায় গিয়েছেন ১৫৩জন। এটাও জানেন না, বাদ দিলাম।

আসেন চ্যালেঞ্জ করুন, এখানে আইনের কি সমস্যা, গণতন্ত্রের কি সমস্যা, নির্বাচনের কি সমস্যা?

আপনি নির্বাচনে এলেন না। অপ্রতিদন্দি করলেন অনেককে এর দোষ কি গণতন্ত্রের, দোষ কি নির্বাচনের, আপনি এলন না তার দোষ আপনার। নির্বাচনেরও কোন দোষ নয়, গণতন্ত্রেরও কোন দোষ এখানে নেই, বৈধতারও কোন সংকট এখানে নেই। এটা আমি চ্যালেঞ্জ করি বৈধতার কোন সংকট এখানে নেই। আদালত কি ওনাদের মত ঘোড়ার ঘাস খায় নাকি? যেই সেই ব্যাপারে রায় দিয়ে দিবে।

বিএনপিকে নির্বাচনে জেতার নিশ্চয়তা দিলে তারা খুশি এমন মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, এখন তো মনে হয় আদালতের একটা রায় দিয়ে দেওয়া উচিত, যে কোন মূল্যে নির্বাচন কমিশনকে একটা মেনডেট দেওয়া উচিত যে কোন উপায়ে বিএনপিকে নির্বাচনে জেতাতে হবে। এরকম একটা ছোমত রায় নির্বাচন কমিশনের উপর আদালতের দেওয়া উচিত।এ্টা দিলেই বিএনপি খুশি। তাইলে বিএনপি মিথ্যাচারে ভাঙ্গা রেকর্ড আর বাজাবে না।
 
বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ্য করে ওবায়দুল কাদের বলেন, বেগম জিয়া বলেছেন, আওয়ামী লীগকে শুদ্ধ করবেন ওনি, মানুষ করবেন।
বেগম খালেদা জিয়া সবিনয়ে বলি, লোটপাট খুন আগুন, সন্ত্রাস যে ইতিহাস আপনাদের পাপে পাপে। এত পাপ জমে গেছে এটা ধৌত করবে এমন শক্তি নেই। ভারতীয় একটা হিন্দি সিনেমার কথা মনে পড়ে।

রাম তেরে গাল লা হো’ ওখানে পাপ ধুতে ধুতে রামের কন্যা মইলি হয়ে গেছে। আমাদের বুড়িগঙ্গাও মইলি হয়ে গেছে। বিএনপির পাপ যদি ধৌত করতে যান তাহলে বুড়িগঙ্গা আরো মইলি হয়ে যাবে।

আপনি (খালেদা জিয়া) আচরি ধর্ম পরকে শেখায়, আগে নিজেরা শুদ্ধ হোন তার পরে অন্যকে বলুন শুদ্ধ হওয়ার জন্য। আপনাদের থেকে আমরা ভালো আছি, আমাদের ভুল ত্রুটি আছে, এক বারে শতভাগ সঠিক আছি তা বলছি না। কিন্তু আপনারা তো শতভাগের কাছাকাছি অশুদ্ধ।

বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান বলেছিলেন বঙ্গবন্ধুর বক্তব্য শুনে আমরা স্বাধীনতার গ্রীণ সিগন্যাল পেয়েছিলাম। আজকে জিয়াউর রহমান কবরে শুয়ে শুয়ে শুনে ছঠফট করতেছে যখন শুনে তিনি ঘোষক। 
 
শ্রমিক লীগের সভাপতি শুক্কুর মাহমুদের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, শ্রম বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান সিরাজ প্রমুখ।

close