• সোমবার, ২৮ মে ২০১৮, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫
  • ||

জাবির সিনেটে আওয়ামীপন্থীদের নিরঙ্কুশ জয়

প্রকাশ:  ৩১ ডিসেম্বর ২০১৭, ০৯:২২ | আপডেট : ৩১ ডিসেম্বর ২০১৭, ১৩:৩৬
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি
প্রিন্ট
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেটে রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট প্রতিনিধি নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে। 

২৫টি আসনের বিপরীতে নির্বাচনে আওয়ামীপন্থী গ্র্যাজুয়েটদের একাংশের প্যানেল ‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রগতিশীল জোট’ ১৮টি আসন পেয়ে নিরঙ্কুশ জয় পেয়েছে। বিএনপন্থী গ্র্যাজুয়েটদের জাতীয়তাবাদী প্যানেল পেয়েছে ৬টি আসন।

রোববার ভোর ৫টায় রিটার্নিং অফিসার ও বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক শেখ মনজুরুল হক ফলাফল ঘোষণা করেন।

আওয়ামীপন্থী গ্র্যাজুয়েটদের অপর অংশ ‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শ, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও প্রগতিশীল গ্র্যাজুয়েট মঞ্চ’ থেকে নির্বাচিত হয়েছেন একজন। স্বতন্ত্র প্রার্থীদের মধ্য থেকে কেউ নির্বাচিত হননি।

তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় ‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রগতিশীল জোট’ প্যানেলের পক্ষে অধ্যাপক শরিফ এনামুল কবীর বলেন,‘ নির্বাচিত করায় সকলের প্রতি আমরা কৃতজ্ঞ। আমরা জাকসু নির্বাচন অনুষ্ঠান ও ক্যাম্পাসে বাণিজ্যিক পরিবেশ দূরীকরণে কাজ করব।’

বিএনপিপন্থী প্যানেলের পক্ষ থেকে অধ্যাপক শামসুল আলম সেলিম বলেন,‘ ক্যাম্পাসের কল্যাণে সকলের সাথে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করব।’ নির্বাচিত করায় সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই।

এদিকে কোন ধরণের অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই শনিবার সকাল ৯টায় শুরু হয়ে বিকেল ৪টায় শেষ হয় ভোট গ্রহণ। নির্বাচনে ৪৩৭৩ জন ভোটারের মধ্যে ৩৬৩৫ জন গ্র্যাজুয়েট তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন। ফলে ৮৩% ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন। ২৫টি আসনের বিপরীতে ১১৯ জন প্রার্থী লড়েছেন। আওয়ামীপন্থী গ্র্যাজুয়েটরা দু’টি প্যানেলে বিভক্ত হয়ে এবং বিএনপিপন্থী গ্র্যাজুয়েটরা একক প্যানেলে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। এছাড়া স্বতন্ত্র প্রার্থী ছিলেন ৪৪জন।

উল্লেখ্য, ১৯৯৮ সালে জাবির সিনেটে রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট প্রতিনিধি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ৩ বছর পরপর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও দীর্ঘ ১৯ বছর পর এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলো গতকাল শনিবার।

/নাঈম