• রবিবার, ২২ জুলাই ২০১৮, ৭ শ্রাবণ ১৪২৫
  • ||

সিদ্ধিরগঞ্জে নানী-নাতী খুন

প্রকাশ:  ০৪ জানুয়ারি ২০১৮, ১৫:২২
নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি
প্রিন্ট

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে নানী ও নাতী খুন হয়েছে। নিখোঁজের সাতদিন পর বৃহস্পতিবার সকালে পুলিশ পারভীন আক্তার ও তার নাতী মেহেদী হাসানের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে। পুলিশের ধারণা, তাদেরকে গলা টিপে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। ঘটনার তদন্তে পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পারভীন আক্তারের জামাতা ও মেহেদী হাসানের পিতা নবী আউয়ালকে আটক করেছে। তবে এলাকাবাসীও বলছে, এই হত্যাকাণ্ডের সাথে তার সম্পৃক্ততা থাকতে পারে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, পারভীন আক্তার, তার জামাতা নবী আউয়াল ও নাতী মেহেদীকে নিয়ে পাইনাদি মধ্যপাড়া এলাকার ইতালি প্রবাসী তোফাজ্জল হোসেনের বাড়িতে প্রায় আড়াই মাস যাবত ভাড়ায় বসবাস করছিলেন। পেশায় সিএনজি চালক নবী হোসেনের দুই স্ত্রী সৌদী আরব ও লেবাননে প্রবাসী। গত ২৯ ডিসেম্বর শাশুড়ি ও ছেলে নিখোঁজের কথা বলে নবী আইয়াল এলাকায় মাইকিং করায়। বুধবার এ ব্যাপারে থানায় জিডি করলে পুলিশ ওই বাড়িতে তদন্ত করতে আসে। তবে পুলিশ কোন আলামত পায়নি।

আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৯টার দিকে নবী আউয়াল নিজেই থানায় ফোন করলে পুলিশ বাড়িতে ঢুকে মানুষের পঁচা লাশের দুর্গন্ধ পেয়ে ঘরের তালা ভেঙে নানী ও নাতীর অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে। ঘটনার কদন্তের জন্য সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নবী আউয়ালকে আটক করেছে।

এলাকাবাসীরও ধারণা, এই হত্যাকাণ্ডের সাথে সে জড়িত থাকতে পারে। কারণ নবী আউয়াল নিজেও এই বাড়িতে থাকতেন। তবে আটককৃত নবী আউয়াল নিজেকে নির্দোষ দাবি করলেও এলাকাবাসী তাকেই সন্দেহ করছে। লাশ উদ্ধারের পর র‌্যাবসহ জেলা পুলিশের অন্যান্য উর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও ঘটনাস্থল পরিদশন করেছেন।

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুস সাত্তার জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ওই বাড়িতে গিয়ে তালা ভেঙে নানী ও নাতীর লাশ উদ্ধার করেছে। নিহতদের লাশ ময়না তদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি তদন্ত চলছে।

জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক-সার্কেল) মো: শরফুদ্দিন আহমেদ জানান, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, তাদেরকে গলা টিপে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। ঘটনার তদন্তের জন্য নবী আউয়ালকে আটক করা হয়েছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তদন্তের পর বিষয়টি সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যাবে, কে বা কারা এই হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত।