• শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১০ ১৪২৫
  • ||
  • আর্কাইভ

ঢাবির সিনেট নির্বাচন প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুল

‘আমার বাসায় আটটি ভোট, এখনো চিঠি আসে নাই’

প্রকাশ:  ০৫ জানুয়ারি ২০১৮, ০২:৪৪ | আপডেট : ০৫ জানুয়ারি ২০১৮, ১১:৫০
নিজস্ব প্রতিবেদক
ফাইল ছবি
প্রিন্ট

আসন্ন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) সিনেট রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েটস প্রতিনিধি নির্বাচনকে জাতীয়তাবাদী পরিষদ যথেষ্ট গুরুত্বের সঙ্গে নিচ্ছে না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

 বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে বাংলাদেশ সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদ (বিএসপিপি) আয়োজিত জাতীয়তাবাদী পরিষদের প্রার্থী পরিচিতি সভায় মির্জা ফখরুল এ মন্তব্য ক‌রেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, আমি একজন আজীবন সদস্য। আমার বাসায় আটটি ভোট। আমার কাছে এখনো চিঠি আসে নাই। আপনারা নির্বাচন সিরিয়াসলি করছেন না। আরো সিরিয়াস হতে হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভোটারের সংখ্যা বেশি উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, এখনো অনেক সময় আছে। প্রতিটি ভোটারের বাসায় যান। বর্তমানে দেশের সার্বিক পরিস্থিতিতে সিনেট নির্বাচন গুরুত্বপূর্ণ। তবে যে রাষ্ট্রে গণতন্ত্র নেই, সেখানে সিনেট নির্বাচন কতোখানি সুষ্ঠু হবে তাতে সন্দেহ আছে। গতবারের অভিজ্ঞতা মনে আছে, প্রার্থীদের কেন্দ্রে যেতে দিতে বাধা দেওয়া হয়েছে।

বিএনপির এই নেতা বলেন, আগামীকাল গণতন্ত্র হত্যা দিবস। প্রশাসন থেকে আমাদের কোনো ধরনের কার্যকলাপ করার অনুমতি দেয়নি। কিন্তু আওয়ামী লীগকে ঢাকা উত্তর-দক্ষিণে অনুষ্ঠান করার অনুমতি দিয়েছে। এক চোখা সব কিছু। আগামীকালের র‍্যালির বিষয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে পারে‌নি বিএনপি। এ বিষয়ে রাতে জানানো হবে।

এ ছাড়া ২ জানুয়ারি ছাত্রদলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী অনুষ্ঠান প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, পুলিশ বাধা দেয়নি। ঝামেলা করেছে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট। রাষ্ট্রপতির বিশেষ নিরাপত্তার জন্য টাকা দিয়ে ভাড়া করা সেমিনার হল বন্ধ রাখে প্রতিষ্ঠানটি।

প্রধান অতিথির বক্তব্যের আগে জাতীয়তাবাদী পরিষদের প্রার্থীদের পরিচয় করিয়ে দেওয়া হয়। সিনেট নির্বাচনে লড়বেন- ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপ-উপাচার্য ড. আ ফ ম ইউসুফ হায়দার (ব্যালট-২), ড. উম্মে কুলসুম রওজাতুল রোম্মান (ব্যালট-৭), এ কে এম ফজলুল হক মিলন (ব্যালট-১১), এ টি এম আব্দুল বারী (ব্যালট-১৩), অধ্যাপক এ বি ফজলুর করিম (ব্যালট-১৪), এ বি এম মোশারফ হোসেন (ব্যালট-১৬), ডা. এস এম রকিবুল ইসলাম (ব্যালট-২৩), কে এম আমিরুজ্জামান (ব্যালট-২৫), ড. চৌধুরী মাহামুদ হাসান (ব্যালট-২৭), ড. জিন্নাতুন নেছা তাদমিদা বেগম (ব্যালট-২৯), অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার (ব্যালট-৩১), ডা. প্রবাদ চন্দ্র বিশ্বাস (ব্যালট-৩৫), ডা. ফরহাদ হালিম (ব্যালট-৩৬), ড. মুহাম্মদ আবদুর রব (ব্যালট-৪৩), ড. মুহাম্মদ আলমোজাদ্দেদী আলফেছানি (ব্যালট-৪৬), ডা. মুহাম্মদ রফিকুল কবির (ব্যালট-৪৮), মোহাম্মদ আসরাফুল হক (ব্যালট-৫৭), অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ মাসুদ আহমেদ তালুকদার (ব্যালট-৬১), ডা. মুহাম্মদ মোয়াজ্জেম হোসেন (ব্যালট-৬২), ডা. মুহাম্মদ শরিফুল ইসলাম (ব্যালট-৬৫), সাইফুল ইসলাম ফিরোজ (ব্যালট-৬৬), অধ্যাপক মোহাম্মদ সেলিম ভূঁইয়া (ব্যালট-৬৭), মোহাম্মদ সেলিমুজ্জামান মোল্যা (ব্যালট-৬৮), শওকত মাহমুদ (ব্যালট-৭৩) ও ড. সদরুল আমিন (ব্যালট-৭৭)।

বিএনপি ভাইস চেয়ারম্যান এ জেড এম জাহিদ হাসানের সঞ্চালনায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. এমাজ উদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য দেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান ও শওকত মাহমুদ, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমানউল্লাহ আমান প্রমুখ।