• রবিবার, ২২ জুলাই ২০১৮, ৭ শ্রাবণ ১৪২৫
  • ||

প্রতিষ্ঠাতা সভাপতিকে স্মরণ করলেন না ছাত্রলীগের কেউ!

প্রকাশ:  ০৬ জানুয়ারি ২০১৮, ২১:২৪ | আপডেট : ০৬ জানুয়ারি ২০১৮, ২১:৩৫
পূর্বপশ্চিম ডেস্ক
প্রিন্ট
ফাইল ছবি

৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি অ্যাডভোকেট দবিরুল ইসলাম এমএলএকে এবার স্মরণ করলেন না ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। আগের বছরগুলোতে তার কবরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানালেও এবার প্রয়োজন মনে করেনি ছাত্রলীগ। প্রতিষ্ঠাতা সভাপতিকে স্মরণ না করে বৃহস্পতিবার আড়ম্বরপূর্ণ পরিবেশে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে ছাত্রলীগের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করা হয়।

১৯৪৮ সালের ৪ জানুয়ারি বিকেলে তৎকালীন ফজলুল হক মিলনায়তনে এক ছাত্র কর্মিসভায় পূর্ব পাকিস্তান মুসলিম ছাত্রলীগ গঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন ফেনী কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের অধ্যাপক নাজমুল করিম। সভায় নইমুদ্দীনকে আহবায়ক করে ১৪ সদস্য বিশিষ্ট একটি আহবায়ক কমিট গঠন করা হয়। এ আহবায়ক কমিটিতে বৃহত্তর ফরিদপুরের দায়িত্বে ছিলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। আর বৃহত্তর দিনাজপুরের দায়িত্বে ছিলেন অ্যাডভোকেট দবিরুল ইসলাম।

পরে ১৯৪৯ সালের সেপ্টেম্বর মাসে ঢাকায় পূর্ব পাকিস্তান মুসলিম ছাত্রলীগের প্রথম কাউন্সিল অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়। ওই কাউন্সিলে দবিরুল ইসলামকে সভাপতি ও খালেক নেওয়াজ খানকে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়। তারা ১৯৪৯ সাল থেকে ১৯৫৩ সাল পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন।

এ ছাত্র সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ঠাকুরগাঁও জেলার বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার পাড়িয়া ইউনিয়নের বামুনিয়া গ্রামের মেধাবী ছাত্র দবিরুল ইসলাম। ২০১৮ সাল ৪ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার গোটা দেশের মতো ঠাকুরগাঁও জেলা শহর ও বালিয়াডাঙ্গী উপজেলাতেও আড়ম্বরপূর্ণ পরিবেশে ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করা হয়।

বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মোমিনুল ইসলাম সুমনের সভাপতিত্বে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সভায় প্রধান অতিথি ছ্লিন গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও ঠাকুরগাঁও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ মো: দবিরুল ইসলাম এমপি।

এ সময় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান সফিকুল ইসলাম, ঊপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুস সামাদ পান্না, বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি আব্দুর রহিম মন্ডল, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক জুলফিকার আলী, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মাজেদুর রহমান, স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহবায়ক মোমিনুল ইসলাম ভাসানী, ঊপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রব্বানী মিয়া।

এ বিষয়ে মরহুম দবিরুল ইসলামের বড় ছেলে ১নং পাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আহসান হাবিব বুলবুল জানান, আমিসহ আমাদের পরিবার কঠিনভাবে মর্মাহত । সর্বমহল স্বীকৃত আমার পিতা ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, ভাষাসৈনিক অ্যাডভোকেট দবিরুল ইসলাম এমএলএ। তার কবর বালিয়াডাঙ্গীর বামুনিয়া পারিবারিক গোরস্থানে। কিন্তু অত্যন্ত দুঃখের বিষয় আজ আড়ম্বপূর্ণ পরিবেশে ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করা হলেও ছাত্রলীগের কোনো নেতাকর্মী প্রতিষ্ঠাতা সভাপতির কবরে একতোড়া ফুল দিয়ে স্মরণ করেননি।

/সাজ্জাদ