• শনিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮, ১ পৌষ ১৪২৫
  • ||

ওসমানী হাসপাতালে রোগীর নাতিনকে ধর্ষনের অভিযোগে ডাক্তার গ্রেফতার

প্রকাশ:  ১৬ জুলাই ২০১৮, ১৭:০২ | আপডেট : ১৬ জুলাই ২০১৮, ২০:২৬
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট

সিলেটের ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রোগীর সঙ্গে থাকা নবম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে ইন্টার্ন চিকিৎসকের বিরুদ্ধে। এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন হাসপাতালের উপ পরিচালক ডা. দেবব্রত রায়।

রবিবার (১৫ জুলাই) মধ্যরাতে তৃতীয় তলার ৭ নম্বর ওয়ার্ডে এই ধর্ষণের ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছে স্কুলছাত্রীর পরিবার।

এ প্রসঙ্গে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায়, ওই নারী।ভিকটিম ঘটানার দিন রাতে নানিকে নিয়ে ৮ নম্বর ওয়ার্ডে ছিল। সেই ওয়ার্ডে চিকিৎসক না থাকায় ভিকটিম রাত ৩টার দিকে প্রেসক্রিপশন নিয়ে হাসপাতালের ৭ নম্বর ওয়ার্ডে ইন্টার্ন চিকিৎসকের কক্ষে যান। এসময় চিকিৎসক ইন্টার্ন মাহতাব মাহবুব মাহিম তাকে ধর্ষণ করে। পরে ভিকটিমকে হাসপাতালের ওসিসিতে ভর্তি করেন রোগীর স্বজনরা। এই ঘটনায় হাসপাতালে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

সোমবার দুপুরে ভিকটিমের স্বজনদের সঙ্গে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও পুলিশ প্রশাসনের মধ্যে বৈঠকের পরে হাসপাতাল থেকে অভিযুক্ত চিকিৎসককে পুলিশ আটক করে।

এ প্রসঙ্গে হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার একেএম মাহবুবুল হক বলেন, ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়ার পর আমরা ওই স্কুলছাত্রীর স্বজন এবং ওই চিকিৎসককে নিয়ে বসি। মেয়ের পক্ষ এবং ওই ইন্টার্নের পক্ষ থেকে পরস্পরবিরোধী বক্তব্য পাওয়া গেছে। মেয়ের পরিবারের আনা অভিযোগ মাহী অস্বীকার করেছেন। বিষয়টি আলোচনার মাধ্যমে সুরাহা না হওয়ায় মাহীকে পুলিশে দেওয়া হয়েছে। মেয়েটিকে ওসিসিতে পাঠানো হয়েছে। ঘটনা খতিয়ে দেখতে বিকালে তদন্ত কমিটি হবে। এছাড়া সব ওয়ার্ডে সিসি ক্যামেরা লাগানো আছে, সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের ফুটেজ সংগ্রহ করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া পুলিশের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, ইন্টার্ন চিকিৎসক কর্তৃক রোগীর সঙ্গে থাকা এক তরুণীকে ধর্ষণের ঘটনার অভিযোগ পাওয়া গেছে। পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) এর তদন্তের কাজ করছেন।

আরকে

ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল,সিলেট,ধর্ষণ
apps