• বৃহস্পতিবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৮, ৩ কার্তিক ১৪২৫
  • ||

কার্যকরের ৩য় দিনেই ডিজিটাল আইনের প্রয়োগ, রিমান্ডে ৫ জন

প্রকাশ:  ১১ অক্টোবর ২০১৮, ২০:১৭
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট

রাষ্ট্রপতির অনুমোদনের পর সংসদে পাস করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন কার্যকরের তিনদিনের মাথায় এর প্রয়োগ শুরু হলো।মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার ভুয়া প্রশ্নপত্র দিয়ে প্রতারণার অভিযোগে পাঁচজনকে আটকের পর তাদের বিরুদ্ধে সদ্য প্রণীত ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে রাজধানীর পল্টন থানায় পুলিশ বাদি হয়ে প্রথম মামলা করে । পরে তাদের আদালতের মাধ্যমে দু’দিন করে রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ

বৃহস্পতিবার শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম সত্যব্রত শিকদার এ আদেশ দেন। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে রিমান্ডের নেওয়া আসামী হলেন, কাউসার গাজী, সোহেল মিয়া, তারিকুল ইসলাম শোভন, রুবাইয়াত তানভির আদিত্য ও মাসুদুর রহমান ইমন।

এর আগে প্রতারকদের বিরুদ্ধে রাজধানীর পল্টন থানায় সদ্য পাস হওয়া ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে প্রথম কোনো মামলা দায়ের করে সিআইডি।

বৃহস্পতিবার (১১ অক্টোবর) এক সংবাদ সম্মেলনে সিআইডি এ তথ্য জানিয়েছে। সিআইডির পুলিশ সুপার মোল্যা নজরুল ইসলাম জানান,ফেসবুক ব্যবহারে প্রচারণা চালিয়ে মেডিক্যাল ভর্তি পরীক্ষায় ভুয়া প্রশ্নপত্র বিক্রির মাধ্যমে অভিযোগে আগের দিন (বুধবার) আটক করা পাঁচজনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করা হয়েছে।

তিনি বলেন, এই প্রতারক চক্র বিভিন্ন পাবলিক পরীক্ষার ভুয়া প্রশ্নপত্র তৈরি করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারণা চালিয়ে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছিল দীর্ঘদিন ধরে। এই চক্রের প্রধান কাউসার গাজীকে গ্রেফতারের পর পুরো চক্রটির বিষয়ে আমরা জানতে পারি।

সিআইডির পুলিশ সুপার বলেন, ফেসবুক আইডি ব্যবহার করে ‘একশভাগ গ্যারান্টি’ দিয়ে তারা শিক্ষার্থীর সঙ্গে প্রতারণা করতো। মোবাইল ব্যাংকিং ব্যবস্থা ব্যবহার করে তারা টাকার লেনদেন করতো। অনেকদিন ধরেই তারা এই প্রতারণার সঙ্গে জড়িত বলে পুলিশ বলছে। সর্বশেষ তারা মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্ন বিক্রির কথা বলে প্রতারণা করছিল। গ্রেফতারকৃতদের কাছ থেকে মোবাইল, বিকাশ রেজিস্টার, ল্যাপটপ আটক করা হয়েছে বলে সিআইডি জানায়।

জাতীয় সংসদে বিভিন্ন পক্ষের আপত্তি, উদ্বেগ ও মতামত উপেক্ষা গত ১৯ সেপ্টেম্বর বিতর্কিত ডিজিটাল নিরাপত্তা বিলটি পাস হয়। পরে ৮ অক্টোবর রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ এই বিলে সই করার পর সেটি আইনে পরিণত হয়।

এনই

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে