• রবিবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮, ২ পৌষ ১৪২৫
  • ||

এমপি প্রার্থীদের কাছে প্রধানমন্ত্রীর সহকারী পরিচয়ে চাঁদা দাবি, প্রতারক গ্রেফতার

প্রকাশ:  ০৭ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:২৩ | আপডেট : ০৭ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:৩৫
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট

নিজেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ সহকারী পরিচয় দিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই প্রতারণা করে আসছিলেন সাব্বির মণ্ডল (২১)।

এমপি প্রার্থীদের মনোনয়ন নিশ্চিতের আশ্বাস দিয়ে চাঁদা দাবি করে ফেঁসে গেলেন তিনি।

বৃহস্পতিবার সকালে গাজীপুর মহানগরের গাছা থানাধীন বোর্ডবাজার এলাকার একটি বাড়ি থেকে এই প্রতারককে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। এ সময় তার কাছ থেকে দুটি মোবাইল ফোন ও আটটি সিমকার্ড জব্দ করা হয়।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ সহকারী পরিচয় দিয়ে প্রতারক সাব্বির মনোনয়ন নিশ্চিতে ডগ সংসদ সদস্য’র কাছ থেকে মোটা অংকের চাঁদা দাবি করেন। মনোনয়ন প্রত্যাশী প্রায় ৪০ সংসদ সদস্যকে ফোন করে ও মোবাইলে এসএমএস পাঠিয়ে চাঁদা দাবি করেছেন তিনি।

গ্রেফতারকৃত সাব্বির গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলার গুটিয়া সরদার পাড়ার মৃত আয়ুইব আলীর ছেলে।

র‌্যাব-১ গাজীপুর পোড়াবাড়ি ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার লে. কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল মামুনের পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বৃহস্পতিবার জানানো হয়, সাব্বির দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন উপায়ে প্রতারণা করে আসছিলেন। তিনি বিভিন্ন সময় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী, আবার কখনও কখনও সজীব ওয়াজেদ জয়ের পিএস সামসুল ওরফে মাসুদ ওরফে মনির নামে পরিচয় দিতেন।

এসব পরিচয় দিয়ে গাজীপুর-৩ আসনের এমপি অ্যাডভোকেট মো. রহমত উল্লাহ, গাজীপুর-৫ আসনের এমপি মেহের আফরোজ চুমকি, বগুড়া-৫ আসনের এমপি মো. হাবিবুর রহমান, গাইবান্ধা-৩ আসনের এমপি ডা. ইউনুস সরকার, বরিশাল-৫ আসনের এমপি জেবুন্নেসা আফরোজ, খুলনা-৩ আসনের এমপি বেগম মন্নুজান সুফিয়ান, কক্সবাজার-৪ আসনের এমপি আব্দুর রহমান বদি, সিলেট-৩ আসনের এমপি মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী, লালমনিরহাট-১ আসনের এমপি মোতাহার হোসেন, নারায়ণগঞ্জের এমপি শামীম ওসমান ও গোলাম দস্তগীর গাজী এবং ঢাকার এমপি অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুনসহ প্রায় ৪০ এমপির কাছে কখনও মোবাইল ফোনে, কখনও এসএমএসের মাধ্যমে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন দেওয়ার কথা বলে লাখ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন তিনি। তাদের অভিযোগের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার সকালে বোর্ডবাজার এলাকার নাসির উদ্দিনের বাড়ি থেকে সাব্বিরকে গ্রেফতার করা হয়।

র‌্যাব জানায়, এসব পরিচয় ব্যবহার করে সচিবালয়সহ বিভিন্ন সরকারি সংস্থায় চাকরি দেওয়ার নামে বিভিন্ন মানুষের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার কথা সাব্বির স্বীকার করেছেন।

এনই

apps

সর্বাধিক পঠিত