• শনিবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৭, ১ অগ্রহায়ণ ১৪২৪
  • ||
  • আর্কাইভ

ছবিতে ‘ন্যুড’ কিছুই দেখানো হয়নি

প্রকাশ:  ১৪ নভেম্বর ২০১৭, ১৯:৩৯ | আপডেট : ১৪ নভেম্বর ২০১৭, ২২:২০
বিনোদন ডেস্ক
প্রিন্ট

চিত্রনায়িকা নিপুণ আক্তার অভিনীত ‘ধূসর কুয়াশা’ ছবিটি নিষিদ্ধ করেছে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ড। দীর্ঘদিন ধরে সেন্সর বোর্ডে আটকে ছিল গুণী নির্মাতা উত্তম আকাশ পরিচালিত এই ছবিটি। নিপুণ ছাড়াও ছবিতে আরো অভিনয় করেছেন পুষ্পিতা পপি ও নবাগত নায়ক মুন্না। গত জুলাই মাসে ছবিটি সেন্সর বোর্ডে জমা দেয়া হয়। এরপর কিছুটা সংশোধন করে আবারো ছবিটি জমা দেয়া হয় বলে জানিয়েছেন ছবির পরিচালক। সংশোধন কপিটি সেন্সরে জমা দেবার তিন মাস পর ছবিটি নিষিদ্ধ করল সেন্সর বোর্ড।

এ ব্যাপারে রোববার বিকেলে নির্মাতা বলেন, আমিও জানলাম সেন্সরবোর্ড থেকে আটকানো হয়েছে ছবিটি। এর আগে বলা হয়েছিল ছবিটি রিভাইস করে দিতে। সেটা করে দিলাম। এরপর কেন আটকানো হয়েছে আমি তো বলতে পারবো না।
উত্তম আকাশ বলেন, এই ছবিতে এমন কিছু নাই যার জন্য ছবিটি আটকানো হবে। আমি আসলে বুঝতে পারছি না। সেন্সর বোর্ডে যারা গুণীজন আছেন বিষয়টা তারাই ভালো বলতে পারবেন। একটা ছবিকে আটকাতে গেলে কিছু কারণ থাকতে হয়।

ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি আরো বলেন, মধু হৈ হৈ বিষ খায়াইলা, মার ছক্কা নামের ছবিগুলো যদি হলে মুক্তি পেতে পারে। ধূসর কুয়াশা নামটাও তো সুন্দর। এখন কারো প্রতি যদি ব্যক্তিগত আক্রোশ থাকে সেটাও জানি না। আমার প্রযোজক নতুন, তিনি অনেক কষ্ট করে ছবিটাতে বিনিয়োগ করেছেন। আমি মনে করি, সিনেমাটা আটকে দেয়ার মতো কিছুই নাই। ছবিতে ন্যুড কিছুই দেখানো হয়নি। ছবিটাতে পলিটিক্যালও কিছু নাই। ছবিটি মুক্তির প্রক্রিয়া নিয়ে নির্মাতা বলেন, এখন আপিল করতে হবে। আপিল ছাড়া তো কোনো পথ নাই। প্রথমে কিছু রিভাইস দেয়া হয়েছে সেগুলো করেছি। এরপরও ছবিটা আটকে দেয়া হয়েছে। এখন তো আপিল ছাড়া কোনো পথ দেখছি না।

বর্তমান সেন্সর বোর্ড নিয়ে উত্তম আকাশ বলেন, বিগত দিনে যেমন দেখা গেছে, সেন্সর বোর্ডে টাকা খাওয়ার লোকজন ছিল। এই কমিটিতে কিন্তু তেমন লোক নাই। সেন্সরবোর্ডে এখন বিজ্ঞজনেরা আছেন। কিন্তু তারা অনুধাবন করেন না একটা ছবিকে দীর্ঘদিন আটকে রাখলে সেই ছবিটা ব্যবসায়িক ক্ষতির মুখে পড়ে। ছবি নিয়ে যদি আপত্তি থাকে, তবে কিছু কারেকশন দিতে পারে। কিন্তু কোনো ছবিকে ব্যানড করে দেয়া তো বিরাট ব্যাপার। ব্যানড মানে তো ছবিটা আর কোনোদিন দেখানো যাবে না।

close