• মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১০ আশ্বিন ১৪২৫
  • ||

গাজীপুরে ভবনের ছাদ ধসের ঘটনায় তদন্ত কমিটি

প্রকাশ:  ০৫ জানুয়ারি ২০১৮, ২৩:৪৪
গাজীপুর প্রতিনিধি
প্রিন্ট

গাজীপুরের শ্রীপুরে নির্মাণাধীন ভবনের ছাদ ধসে হতাহতের ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন জেলা প্রশাসন। শুক্রবার বিকেলে গাজীপুরের জেলা প্রশাসক ড. দেওয়ান মোহাম্মদ হুমায়ূন কবীরের নির্দেশে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট রাহেনুল ইসলামকে প্রধান করে ৬ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।

কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন গাজীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী, এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী, ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক ও শ্রীপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। তারা ভবনটি ধসে পড়ার কারণ, এ ঘটনার জন্য কারা দায়ী, ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নির্ণয় এবং ভবিষ্যতে যাতে এ ধরনের ঘটনা না ঘটে সেজন্য করণীয়গুলো চিহ্নিত করে আগামী সাত কর্মদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিবেন।

জেলা প্রশাসক জানান, এ ঘটনায় নিহতের পরিবারকে ২০ হাজার টাকা আর্থিক অনুদান দেওয়া হবে। এছাড়াও আহতদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

এর আগে শুক্রবার দুপুরে শ্রীপুর উপজেলার প্রহ্লাতপুর ইউনিয়নের নিশ্চিন্তপুর ফাউগান এলাকায় ভিশন গ্রুপের চেয়ারম্যান ডা. আব্দুল হামিদের মালিকানাধীন সাহারা রিসোর্টের নির্মীয়মাণ ভবনের ছাদ ধসে এক শ্রমিক নিহত হয়েছেন। ওই ঘটনায় আহত হয়েছেন সাতজন।

নিহত আব্দুল্লাহ (২৫) দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট এলাকায় বাসিন্দা। তিনি নির্মাণ শ্রমিকদের তত্ত্বাবধায়ক ছিলেন।

আহতদের মধ্যে ৫ জনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তারা হলেন দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট এলাকার আজিজুল হকের ছেলে মাইদুল ইসলাম (২২), একই এলাকার তমিজ উদ্দিনের ছেলে মন্টু মিয়া (২০), জামালপুরের শহর আলীর ছেলে ইকবাল (১৬), ফাওগান এলাকার রওশন আলীর ছেলে রহিম বাদশা (১৭) ও একই এলাকার সামসুল হকের ছেলে মেহেদুল (২৫)।

জয়দেবপুর ফায়ার সার্ভিসের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা মো. জাকির হোসেন ও স্থানীয়দের ভাষ্যনুযায়ী, কয়েকজন শ্রমিক ভবনের দ্বিতলে ছাদ তৈরির কাজ করছিল। দুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে হঠাৎ ওই ভবনের ছাদের একাংশ ধসে পড়ে। এ সময় স্থানীয়রা ৫/৬ জনকে উদ্ধার করে বিভিন্ন হাসপাতালে পাঠায় এবং ফায়ার সার্ভিসে খবর দেয়। পরে দমকলবাহিনী নির্মাণ সামগ্রীর নীচ থেকে নিহতের লাশ এবং আহত দুজনকে উদ্ধার করে।

শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরী বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, আহতাবস্থায় এ হাসপাতালে ৫ জনকে আনা হয়। তাদের মধ্যে মন্টু, ইকবাল ও মেহেদুলকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। বাকি দুজনকে এ হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শ্রমিক মাইদুল ইসলামের ভাষ্য, প্রায় ৫০ জন শ্রমিক দুতলার ছাদ ঢালাইয়ের কাজ করছিলেন। তিনি তখন ভাইভেটর মেশিন চালাচ্ছিলেন। দুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে হঠাৎ ছাদের একাংশ ধসে পড়ে।