• রবিবার, ২২ জুলাই ২০১৮, ৭ শ্রাবণ ১৪২৫
  • ||

রোহিঙ্গা নারীদের শুধু ধর্ষণই করা হয়নি জুলুমও করা হয়েছে

প্রকাশ:  ০৬ জানুয়ারি ২০১৮, ০০:১২
কক্সবাজার প্রতিনিধি
প্রিন্ট

দুদিন ধরে উখিয়ার কুতুপালং ও বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে ওআইসি'র ইন্ডিপেন্ডেন্ট পার্লামেন্ট হিউম্যান রাইটস কমিটি 'আইপিএইচআরসি'র চেয়ারপার্সন ড. রশিদ আল বালুসি বলেছেন, মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর সেদেশের সেনা, বিজিপি ও রাখাইন জনগোষ্ঠী বর্বরোচিত হামলা চালিয়ে বাড়িঘর পুড়িয়ে দিয়েছে। হত্যা করা হয়েছে শিশু ও যুবকদের। ধর্ষণ করা হয়েছে নারীদের।

শুক্রবার (৫ জানুয়ারি) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে উখিয়ার বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্প ২ এলাকায় সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, ওআইসির ১৩সদস্যের প্রতিনিধিদল দুইদিন ধরে উখিয়ার কুতুপালং ও বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্প এলাকা পরিদর্শনের পাশাপাশি মিয়ানমার থেকে নির্যাতনের শিকার হয়ে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের সঙ্গে কথা বলেছি। এতে আমরা যতটুকু জেনেছি, মিয়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর গণহত্যা ও গণধর্ষণসহ শিশুদের অগ্নিকাণ্ডে নিক্ষেপসহ নানান নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে। বাস্তুহারা বিশাল মুসলিম জনগোষ্ঠীকে আশ্রয়, খাদ্য, চিকিৎসা সেবা দিয়ে সে মানবিকতার পরিচয় দিয়েছে সে জন্য বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আর্ন্তরিক ভাবে ধন্যবাদ। মিয়ানমার সামরিক জান্তার বর্বরতার যাবতীয় তথ্য উপাত্ত আমরা ওআইসি'র কাছে প্রতিবেদন আকারে পেশ করবো।’

প্রতিনিধি দলে ছিলেন, ওআইসি'র ভাইস চেয়ারম্যান মেড এসকে ক্যাগওয়া, ভাইস চেয়ারম্যান ড. রাইহানাহ বিনতে আবদুল্লাহ, সাবেক রাষ্ট্রদূত কমিটির সদস্য মোহাম্মদ জমির, আবদুল ওহাব, মাহমুদ মোস্তাফা আফিফি, এডামা নানা, নির্বাহী পরিচালক মার্গোব সেলিম বাট, হাফিদ এল হাসমি, আকমেদ আল গামদি, হাসান আবেদিন, মাহা আকিল, আবদুল্লাহ কাবি ও মোহাম্মদ গালাবাসহ বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও জেলা উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা।