• বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৫ আশ্বিন ১৪২৫
  • ||

অভিযোগ করলে চাকরি থাকবে না

প্রকাশ:  ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৮:৪১
পূর্বপশ্চিম ডেস্ক
প্রিন্ট

কাতারে অভিবাসী শ্রমিকদের সুরক্ষায় শ্রম আইন সংস্কারে উৎফুল্ল হওয়ার কথা বাংলাদেশি শ্রমিক শরীফের৷ কিন্তু তিনি মনে করছেন, নতুন আইনে চাকরিদাতার তাঁকে হয়রানির সুযোগ থেকেই যাচ্ছে৷ পুরো নাম-পরিচয় প্রকাশে অনিচ্ছুক ২২ বছরের এই যুবক রয়টার্সকে বলেন, ‘‘মালিকের বিরুদ্ধে অভিযোগ করাটা ঠিক হবে না৷ কারণ, তাহলে কোম্পানি আমাকে চাকরিচ্যুত করে বাড়ি পাঠিয়ে দিতে পারে৷

‘‘যদি আমাকে বাড়ি পাঠিয়ে দেয়, তাহলে আমার পরিবারকে সাহায্য করার জন্য কেউ টাকা দেবে না৷’’

কাতার ২০২২ ফুটবল বিশ্বকাপের আয়োজক হওয়ার পর থেকে সে দেশে অভিবাসী শ্রমিকদের হয়রানির বিষয়টি অনেকবারই খবরের শিরোনামে এসেছে৷ বিষয়টি নিয়ে অব্যাহত চাপের মধ্যে গত বছর শ্রমিকদের সুরক্ষায় বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে তেল সমৃদ্ধ মধ্যপ্রাচ্যের দেশটি৷

এসব উদ্যোগের মধ্যে সাময়িকভাবে মাসিক ন্যূনতম বেতন ৭৫০ রিয়াল (২০০ ডলার) এবং অভিবাসী শ্রমিকদের সমস্যার সমাধানে একটি কমিটি করা উল্লেখযোগ্য৷

গত সপ্তাহেও গুরুত্বপূর্ণ একটি সিদ্ধান্ত হয়েছে৷ বিদেশি শ্রমিকদের দেশত্যাগের জন্য চাকরিদাতার অনুমতি নেওয়ার বাধ্যবাধকতা তুলে নেওয়া হয়, যে দাবি দীর্ঘ দিন ধরে করে আসছিল মানবাধিকার সংগঠনগুলো৷

দোহায় নতুন চালু হওয়া আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও)-র অফিসের প্রধান হুতান হোমায়ুনপুর বলেন, ‘‘আমরা সম্পর্কের ধরনে পরিবর্তন আনছি৷ এটা (দেশ ছাড়ার অনুমতি বাতিল) শ্রমিকদের অসহায়ত্ব লাঘবে বিরাট ভূমিকা রাখবে৷ তাঁরা এখন মুক্ত, তাঁরা এখন যে কোনো জায়গায় যেতে পারবে৷’’

তিনি একথা বললেও অনেকের অভিমত, চাকরি বদলের জন্য এখনো নিয়োগকর্তার অনুমতির বাধ্যবাধকতা থাকায় এই পদক্ষেপে খুব একটা সুফল মিলবে না৷

তারপরেও বিশ্বকাপ সামনে রেখে অভিবাসী শ্রমিকদের হয়রানি বন্ধে কাতার সরকারের নেওয়া পদক্ষেপগুলোকে স্বাগত জানিয়েছেন অধিকারকর্মীরা৷

শ্রম অধিকার বিষয়ক পরামর্শক প্রতিষ্ঠান ইকুইডেম রিসার্চের প্রধান মুস্তফা কাদরি বলেন, এসব পদক্ষেপের বাস্তবায়নই এখন বড় চ্যালেঞ্জ৷

‘‘শ্রমিক শোষণ ও হয়রানি বন্ধে জরুরি হচ্ছে এসব সংস্কার বাস্তবায়ন এবং নিজেদের অধিকার সম্পর্কে শ্রমিকদের সচেতনতা তৈরি৷’’

ক্ষতিপূরণ

দেশটির প্রায় ২০ লাখ বিদেশি শ্রমিকের অনেকেই মনে করেন না যে, হয়রানি থেকে তাদের রক্ষায় এসব পরিবর্তনই যথেষ্ট৷

শরীফ জানান, সরাসরি ব্যাংকের মাধ্যমে তার বেতন হলেও প্রায়ই তাঁকে অতিরিক্ত সময় খাটানো হয়, যা সরকারের পক্ষে জানা সম্ভব নয়৷

আর তাঁর পাঠানো টাকা দিয়েই বাংলাদেশে পরিবারের চলতে হওয়ায় মালিকপক্ষের বিরুদ্ধে তিনি কিছু বলতে চান না৷

তাঁকে ন্যূনতম বেতনই দেওয়া হয়, যার পরিমাণ মাসে ৯০০ রিয়ালের কম৷ অথচ বাংলাদেশে যাদের মাধ্যমে তিনি কাতারে এসেছিলেন, তাঁরা মাসিক বেতন ৯০০ রিয়াল হবে বলেই প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন৷ আর ওই কাজের জন্য তাঁর কাছ থেকে ৭০০ ডলার হাতিয়ে নিয়েছিল তারা৷

কাতারে কাজে নিয়োগের জন্য রিক্রুটমেন্ট ফি নেওয়া অবৈধ৷ বিশ্বকাপ আয়োজনের পরিকল্পনা ও কার্যক্রম পরিচালনার দায়িত্বে নিয়োজিত দেশটির সুপ্রিম কমিটি ফর ডেলিভারি অ্যান্ড লিগাসি বলেছে, এভাবে অর্থ দিয়ে আসা স্টেডিয়াম শ্রমিকদের ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে৷

এই পর্ষদ গত বছর একটি অনুসন্ধান চালিয়ে দেখতে পায়, এশিয়ার শত শত শ্রমিক বিশ্বকাপ স্টেডিয়াম নির্মাণ কাজ পেতে ৩ হাজার ৮০০ ডলার পর্যন্ত রিক্রুটমেন্ট ফি দিয়েছে৷

এ বিষয়ে কাদরি বলেন, ‘‘অবৈধভাবে ফি দেওয়া-নেওয়াটা ধরা এবং তা বন্ধ করা খুব কঠিন৷ যেসব দেশ থেকে শ্রমিক আসছে, শুধু সেখানেই নয়, এখানেও শ্রমিকদের কাছ থেকে এভাবে টাকা নেওয়া ব্যক্তিদের চিহ্নিত করে তা বন্ধ করাও সহজ নয়৷’’

কাতারের শ্রম বিষয়ক মন্ত্রী ঈসা আল-নুয়াইমি বলেন, সাধারণত বাইরের দেশগুলোতেই অবৈধ রিক্রুটমেন্ট ফি নেওয়া হয়৷ মানবপাচার বন্ধে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে কাজ করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি৷

‘‘অধিকাংশ অপরাধই আন্তঃমহাদেশীয়৷’’

মানবপাচারের শিকার ব্যক্তি এবং গৃহকর্তার নির্যাতনের শিকার গৃহকর্মীদের জন্য সরকার একটি আশ্রয় কেন্দ্র চালু করছে বলে জানান মন্ত্রী৷

‘যাত্রা শুরু’

কাতারে এখন শ্রমিকদের মধ্যে স্থানীয়দের তুলনায় ২০ গুণ অভিবাসী৷ তাঁদের অধিকাংশই ফিলিপাইন্স, দক্ষিণ এশিয়া ও আফ্রিকা থেকে আসা৷ দেশটির নির্মাণ খাতেই প্রায় আট লাখ লোক নিয়োজিত রয়েছে৷

অতিরিক্ত তাপমাত্রায় নির্মাণ কাজে নিয়োজিতদের রক্ষায় পদক্ষেপ নিতে গত বছর কাতার সরকারের প্রতি আহ্বান জানায় হিউম্যান রাইটস ওয়াচ৷ এখানকার তাপমাত্রা বিপদজনক পর্যায়ে পৌঁছায় এবং কয়েকশ' মানুষের রহস্যজনক মৃত্যুর জন্য এদিকেই ইঙ্গিত করা হয়৷

গত ১১ বছর ধরে কাতারে নির্মাণ খাতে কর্মরত দীনেশ বলেন, শ্রমিকদের নিরাপত্তা ব্যবস্থার অগ্রগতি হয়েছে এবং আগে যেখানে চার মাস অন্তর বেতন পেতেন এখন প্রতি মাসেই তা পাচ্ছেন৷

‘‘আমি যখন প্রথম এখানে আসি, তখন নির্মাণ সাইটে কোনো নিরাপত্তা ব্যবস্থা ছিল না৷ তবে এখন আছে,’’ বলেন ৩২ বছর বয়সি এই ভারতীয়৷

তবে অনেকে বলছেন, যেসব এলাকায় কর্তৃপক্ষের নজরদারি কঠিন, সে সব এলাকায় এখনো শ্রমিকদের হয়রানি করা হচ্ছে৷

ঘানা থেকে আসা ২২ বছরের তরুণ সুলেমান বলেন, ‘‘বাড়তি সময় কাজ না করলে তারা আপনাকে এমন একটি জায়গায় দেবে, যেখানে শাস্তি হিসেবে গরম থাকবে৷’’

তিনি জানান, তাঁকে কাজ দেওয়া নির্মাতা কোম্পানি তাঁর পাসপোর্ট নিয়ে গেছে, যদিও কাতারে তা বেআইনি৷

ইকুইডেমের কাদরি বলেন, ‘‘এটা কেবল যাত্রা শুরু৷ বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ লক্ষ্য অর্জন করা গেছে৷ তবে সংস্কারের পদক্ষেপগুলোর পুরোপুরি বাস্তবায়ন হয়ত প্রজন্মান্তরে হবে৷’’

সূত্র: ডয়চে ভেলে (ডিডাব্লিউ)

-একে

কাতার