• শনিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮, ১ পৌষ ১৪২৫
  • ||

তাঁর সিদ্ধান্তেই ঘুরল ফাইনাল! দু’ ভাগ ফুটবল বিশ্ব

প্রকাশ:  ১৬ জুলাই ২০১৮, ১৭:৪৯
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রিন্ট

বিশ্বকাপ জিতে ফ্রান্সের গ্রিজম্যান, পোগবা, এমবাপেরা এখন আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের শিরোনামে। ফাইনালে দুর্দান্ত লড়াই করে চর্চায় ক্রোয়েশিয়ার মদ্রিচ, পেরিসিচরাও। দুই দলের ফুটবলাররা ছাড়াও ফাইনালে মাঠে থাকা আরও এক জনকে নিয়েও জোর আলোচনা শুরু হয়েছে। তিনি নেসটর পিটানা। আর্জেন্টিনার এই রেফারির দু’টি বিতর্কিত সিদ্ধান্ত নিয়েই এখন দ্বিধাবিভক্ত আন্তর্জাতিক ফুটবল মহল। অনেকেই বলছেন বড় ম্যাচে হয়তো বড় দুটো ভুল করে ফেলেছেন এই রেফারি। তাঁর দেওয়া দু’টি সিদ্ধান্তই ফাইনালের ভাগ্য করে দিল বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরাও।

ফ্রান্স-ক্রোয়েশিয়া ম্যাচের আঠারো মিনিটে ফরাসিদের পক্ষে ফ্রি-কিক দেন পিটানা। গ্রিজম্যানের নেওয়া সেই ফ্রি-কিক থেকে আত্মঘাতী গোল করে বসেন ক্রোয়েশিয়ার মান্ডজুকিক। বিশেষজ্ঞরা এই ফ্রি-কিক নিয়েই প্রশ্ন তুলছেন। তাঁরা বলছেন, ফরাসি তারকা গ্রিজম্যানের ‘প্লে অ্যাক্টিং’ ধরতে পারেননি আর্জেন্টিনীয় রেফারি। তাই ফাউল না হওয়া সত্ত্বেও গ্রিজম্যান মাটিতে পড়ে যেতেই ফ্রান্সের পক্ষে ফ্রিকিকের সিদ্ধান্ত দেন তিনি। যার পরিণতিতে গোল খায় ক্রোয়েশিয়া।

ফ্রি-কিক নিয়ে যত না বিতর্ক হচ্ছে তার থেকেও বেশি বিতর্ক হচ্ছে ফ্রান্সের পক্ষে দেওয়া পেনাল্টির সিদ্ধান্ত নিয়ে। ক্রোয়েশিয়ার বক্সে পেরিসিচের হাতে বল লাগে। যদিও তা ইচ্ছাকৃত নয় বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। প্রথমে হ্যান্ডবলের সিদ্ধান্ত না দিলেও ফরাসি খেলোয়াড়দের দাবি মেনে এবং ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারির পরামর্শে সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করেন পিটানা। এর পরই মাঠের বাইরে এসে বার বার ঘটনার রিপ্লে দেখেন তিনি। ভার-এর সাহায্য নিয়ে কোনও সিদ্ধান্ত নিতে রেফারিরা সাধারণত যতটা সময় নেন, এক্ষেত্রে তার থেকে বেশ কিছুটা বেশি সময় নেন পিটানা। স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছিল, সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে নিশ্চিত হতে চাইছেন তিনি। শেষ পর্যন্ত ফ্রান্সের পক্ষে পেনাল্টি দেন আর্জেন্টিনার রেফারি। গোল করে ফ্রান্সকে এগিয়ে দেন গ্রিজম্যান।

বিবিসি-র বিশেষজ্ঞ প্রাক্তন ইংল্যান্ড তারকা অ্যালান শিয়েরার পিটানার এই সিদ্ধান্তকে হাস্যকর বলে সমালোচনা করেন। তাঁর মতে ফ্রিকিক এবং পেনাল্টি, দু’ ক্ষেত্রেই ভুল সিদ্ধান্ত নিয়েছেন পিটানা। শিয়ারারের সঙ্গেই সহমত পোষণ করেছেন জার্মানির প্রাক্তন তারকা ফুটবলার এবং কোচ ইয়ুর্গেন ক্লিনসম্যান। আর এক প্রাক্তন ইংরেজ ফুটবলার রিও ফার্দিনান্দ বলেন, ‘‘দুটো খারাপ সিদ্ধান্তই গোটা খেলাটাকে ঘুরিয়ে দিল।’’

শুধু বিশেষজ্ঞরাই নন, পিটানার দেওয়া এই দু’টি সিদ্ধান্ত নিয়ে ফুটবল ভক্তরাও দ্বিধাবিভক্ত। অনেকেই বলছেন, পেরিসিচ মোটেই ইচ্ছাকৃতভাবে বলে হাত লাগাননি। তাই পেনাল্টির সিদ্ধান্ত দিয়ে ভুল করেছেন পিটানা। আবার কেউ কেউ রেফারির সমর্থনেও সরব হয়েছেন। তাঁদের দাবি, পেনাল্টি দিয়ে ঠিকই করেছেন পিটানা। যেভাবে বলে হাত লাগিয়েছেন ক্রোয়েশিয়ার ফুটবলার, তাতে সঠিক সিদ্ধান্তই নিয়েছেন আর্জেন্টিনীয় রেফারি।

সব মিলিয়ে ফাইনাল শেষ হলেও প্রাক্তন অভিনেতা পিটানার জোড়া সিদ্ধান্ত নিয়ে বিতর্কের শেষ নেই। এই পিটানাই এবারে বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচ খেলিয়েছিলেন। আবার তিনিই ফাইনাল খেলালেন। অভিজ্ঞতার নিরিখে তাঁকে ফাইনাল ম্যাচ পরিচালনার গুরু দায়িত্ব দেওয়ায় চমকে গিয়েছিলেন অনেকেই। আর্জেন্টিনার দ্বিতীয় রেফারি হিসেবে বিশ্বকাপের ফাইনাল খেলালেন পিটানা। তাঁর নেওয়া সিদ্ধান্তেই বিশ্বকাপের ফাইনাল ভার প্রযুক্তির সাহায্যে গোল দেখল ফুটবল বিশ্ব।

/এস কে

apps