Most important heading here

Less important heading here

Some additional information here

Emphasized text
  • বৃহস্পতিবার, ২৪ জানুয়ারি ২০১৯, ১১ মাঘ ১৪২৫
  • ||

দিনাজপুর হাবিপ্রবি’র উপাচার্য অবরুদ্ধ

প্রকাশ:  ১০ জানুয়ারি ২০১৯, ২০:৪৫
দিনাজপুর প্রতিনিধি
প্রিন্ট icon

দিনাজপুর হাজী মোহাম্মদ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ( হাবিপ্রবি) ক্লাস ও পরীক্ষা চালু রাখার দাবিতে বিজ্ঞান অনুষদ ও কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের ছাত্রছাত্রীরা উপাচার্যের কক্ষের সামনে অবস্থান কর্মসুচি পালন করছে।

পূর্ব নির্ধারিত সময়সূচি অনুযায়ী বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার সময় প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরামের শিক্ষকদের সাথে উপাচার্যের কক্ষে বৈঠকে বসেন বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। বিকাল ৩টা পর্যন্ত আলোচনা চলার পরেও আশানুরুপ সমাধান হয়নি। পরে বিকাল ৪টায় বর্ধিত বেতনের দাবিতে আন্দোলনরত ৫৭জন সহকারি অধ্যাপকের সাথেও বৈঠকে বসেন বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য। উভয় সংগঠনের শিক্ষকদের সাথে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত পৃথক পৃথক বৈঠক করেও কোন সিন্ধান্ত আসতে পারেনি বলে জানা গেছে।

এদিকে ক্লাস পরীক্ষা চালুর দাবীতে সকাল ১১টা থেকে প্রশাসন ভবনের সামনে বিক্ষোভ করেছে সাধারন শিক্ষার্থীরা। পরে বিকাল ৩টা হতে তারা উপাচার্যের কক্ষের সামনে এবং ভবনের সিঁড়িতে অবস্থান নিয়ে প্রশাসন এবং আন্দোলনকারী শিক্ষকদেরকে অবরুদ্ধ করে রাখে।

আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের মধ্যে ট্রিপলী বিভাগের শিক্ষার্থী সজীব চৌধুরী বলেন, ‘শিক্ষকরা নিজেদের স্বার্থে আমাদেরকে ব্যবহার করছে। তারা আমাদের বিষয়গুলো বিবেচনায় রাখেনা। আজকে আমরা উভয় পক্ষকেই একসাথে করতে পেরেছি একটা আশানুরুপ সমাধান না পাওয়া পর‌্যন্ত আমাদের অবস্থান ত্যাগ করবো না।

নেপাল থেকে পড়তে আসা কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী ধর্মেন্ধনাথ বলেন, ‘ নির্দিষ্ট একটা সময়ের ভিসা নিয়ে আমরা পড়তে এসেছি। ইতোমধ্যে চার বছর অতিক্রম হতে চলেছে অথচ এখনো ফোর্থ ইয়ার শুরু করতে পারিনি। আমরা যারা বাইরের দেশ থেকে পড়তে এসেছি তারা সকলে সামনের দিনগুলোতে একটা সমস্যায় পড়তে যাচ্ছি।’

কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী সাথি জানায় , নিয়ম অনুয়ারী আমাদের ২০১৭ সালে । অনার্স কোর্স শেষ হওয়ার কথা কিন্তু ২০১৮ সাল পর্যন্ত শেষ অথচ আমাদের তিন পরীক্ষা শেষ হয়েছে মাত্র । শিক্ষকদের আন্তঃ দ্ব›েদ্বর কারনে আমাদের শিক্ষা জীবনে বড় এক বাধার সম্মুখিন হচ্ছি । আজ অবশ্যই আমাদের ক্লাস পরীক্ষার চালুর তারিখ ঘোষনা না হওয়া পর্যন্ত আমরা উপার্চায়ের গেটের সামনে অবস্থান নিয়েছি দাবি না পুরন পর্যন্ত এখানেই থাকব।

অন্যদিকে যৌন নির্যাতনকারী শিক্ষকদের বরখাস্তের দাবীতে আন্দোলনকারী প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরামের সহ সম্পাদক প্রফেসর এস.এম হারুন অর রশিদ বলেন, ‘আমরা ক্লাসে ফিরতে চাই। কিন্তু ২৯ নভেম্বরে রেজিস্ট্রারকে লাঞ্ছিত করার অভিযোগে দুইজন শিক্ষককে যেভাবে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে ঠিক সেভাবেই ১৪ নভেম্বর তারিখে বর্ধিত বেতনের দাবীতে আন্দোলনকারী শিক্ষকদেরকে মারধর ও নারী শিক্ষকের শ্লিলতাহানিকারী প্রক্টর ও ছাত্র উপদেষ্টাকে সাময়িক বরখাস্ত করে উভয় ঘটনার তদন্তের জন্য নিরপেক্ষ তদন্ত কমিটি গঠন করলেই আশারাখি সকল শিক্ষকই ক্লাসে ফিরে যাবে। সেই সাথে বর্ধিত বেতনের দাবীতে আন্দোলনকারী শিক্ষকদের বিষয়টির সুষ্ঠু সমাধানকল্পে বিশ্ববিদ্যালয়ের অভিভাবক হিসেবে উপাচার‌্যকেই পদক্ষেপ নিতে হবে।’

সহকারী রেজিষ্ট্রার সৌরভ চৌধুরী মুঠো ফোনে জানান , সকাল ১১ টা থেকে রাত ৭ পর্যন্ত অবরুদ্ধ হয়ে উপাচার্যের কার্যালয়ে অবস্থান করতেছি । বাহিরে ছাত্রছাত্রীরা অবস্থান করছে । ছাত্রছাত্রীদের যৌক্তিক দাবি ক্লাস পরীক্ষা চালুর বিষয়ে উপাচার্যসহ অন্যান্য শিক্ষকদের মধ্যে আলোচনা চলছে । তবে কোন সিন্ধান্ত এখন পর্যন্ত হয়নি । লুডুস , কলা , পুড়ি খেয়ে সকাল থেকে ৬০জনের উপরে শিক্ষক অবরুদ্ধ হয়ে আছে।

সন্ধ্যা ৬টার সময় মুঠোফোনে বিশ্ববিদ্যালয় রেজিস্ট্রার প্রফেসর সফিউল আলম বলেন, আন্দোলনকারী শিক্ষকরা তাদের দাবীগুলো উত্থাপন করেছে। আলোচনা চলছে তবে এখন পর‌্যন্ত আলোচনার কোন সমাধান আসেনি।

দীর্ঘ একমাস বন্ধ থাকার পরে গত বৃহস্পতিবার খুলেছে দিনাজপুর হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। কিন্তু নানা দাবিতে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী সংগঠনের (প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরাম) শিক্ষকদের আন্দোলন এবং বর্ধিত বেতনের দাবীতে ৫৭ জন সহকারি শিক্ষকের আন্দোলনের মুখে বন্ধ রয়েছে বিজ্ঞান অনুষদ ও কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের ক্লাস পরীক্ষা। ফলে শিক্ষার্থীরা পড়েছেন বিপাকে। সেশন জোটের কবল থেকে মুক্তি পেতে এবং চলমান পরিস্থিতির সমাধানকল্পে ক্লাস পরীক্ষা স্বাভাবিক রাখতে আন্দোলনে নেমেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

পিবিডি/আরিফ

দিনাজপুর
apps
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত