Most important heading here

Less important heading here

Some additional information here

Emphasized text
  • সোমবার, ২৫ মার্চ ২০১৯, ১১ চৈত্র ১৪২৫
  • ||

বাড়লো আপন জুয়েলার্স মালিকদের জামিন স্থগিতের মেয়াদ

প্রকাশ:  ০২ জানুয়ারি ২০১৮, ১৪:০১
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট icon
ফাইল ছবি

আপন জুয়েলার্সের তিন মালিকের জামিনের ওপর স্থগিতাদেশের মেয়াদ আরো ছয় দিন বাড়িয়েছে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।

হাইকোর্টের দেওয়া জামিন আদেশের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষ যে আবেদন করেছে, আপিল বিভাগে তার শুনানি হবে ৮ জানুয়ারি। তার আগ পর্যন্ত তিন ভাইয়ের জামিন স্থগিতই থাকবে।

সুপ্রিম কোর্টের অবকাশ শেষে মঙ্গলবার রাষ্ট্রপক্ষের আবেদন আপিল বিভাগে তোলা হলে অস্থায়ী প্রধান বিচারপতি আবদুল ওয়াহহাব মিঞার নেতৃত্বাধীন পাঁচ বিচারকের বেঞ্চ ওই তারিখ ঠিক করে দেয়।

আদালতে আপন জুয়েলার্সের মালিকদের পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মোতাহার হোসেন সাজু।

গত ১৪ ডিসেম্বর আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার আহমেদ সেলিম এবং তার দুই ভাই গুলজার আহমেদ ও আজাদ আহমেদকে একটি করে মামলায় জামিন দেয় হাইকোর্ট। আর দিলদার আহমেদের বিরুদ্ধে উত্তরা ও ধানমণ্ডি থানার আরও দুটি মামলায় জামিনের বিষয়ে আদেশ ১ মাসের জন্য মুলতবি রাখা হয়।

পরে রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনে অবকাশকালীন চেম্বার আদালত হাইকোর্টের জামিন আদেশের কার্যকারিতা ২ জানুয়ারি পর্যন্ত স্থগিত করে বিষয়টি শুনানির জন্য আপিলের নিয়মিত বেঞ্চে পাঠিয়ে দেয়। এর ধারাবাহিকতায় বিষয়টি মঙ্গলবার আপিল বিভাগে এলে শুনানির জন্য ৮ জানুয়ারি তারিখ ঠিক করে দেওয়া হয়।

বনানীর একটি হোটেলে জন্মদিনের অনুষ্ঠানের নামে ডেকে নিয়ে দুই তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগে দায়ের হওয়া মামলায় গত মে মাসে গ্রেপ্তার হন আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদারের ছেলে সাফাত আহমেদ।

ওই ঘটনায় দেশজুড়ে তোলপাড় শুরু হলে আপন জুয়েলার্সের ‘অবৈধ লেনদেন’ এর খোঁজে তদন্তে নামে শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগ।

এরপর মে মাসের শেষ দিকে আপন জুয়েলার্সের বিভিন্ন বিক্রয় কেন্দ্র থেকে ১৫ দশমিক ৩ মণ সোনা এবং ৭ হাজার ৩৬৯ টি হীরার অলঙ্কার জব্দ করে তা বাংলাদেশ ব্যাংকে পাঠানো হয়।

এ বিষয়ে অনুসন্ধান শেষে গত ১২ আগস্ট আপন জুয়েলার্সের মালিক তিন ভাই দিলদার আহমেদ, গুলজার আহমেদ ও আজাদ আহমেদের বিরুদ্ধে মুদ্রা পাচারসহ বিভিন্ন অভিযোগে গুলশান, ধানমন্ডি, রমনা ও উত্তরা থানায় পাঁচটি মামলা করা হয়।

দুই মামলায় গত ২২ আগস্ট তিন ভাই হাইকোর্ট থেকে চার সপ্তাহের আগাম জামিন নেন। এরপর বিচারিক আদালতে হাজিরা না দেওয়ায় গত ২৩ অক্টোবর তাদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে আদালত।

পরদিন আত্মসমর্পণ করলে তাদের কারাগারে পাঠায় আদালত। এর বিরুদ্ধে হাইকোর্টে পাঁচ মামলায় জামিন আবেদন করেন আপন জুয়েলার্সের মালিক তিন ভাই।

প্রাথমিক শুনানি নিয়ে ২২ নভেম্বর আপন জুয়েলার্সের মালিকদের কেন জামিন দেওয়া হবে না- তা জানতে চেয়ে রুল দিয়েছিল হাইকোর্ট। তারপর গত ১৪ ডিসেম্বর হাইকোর্ট তিন ভাইকে তিন মামলায় জামিন দিলেও তা চেম্বার আদালতে স্থগিত হয়ে যায়।

/নাঈম

apps
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত