Most important heading here

Less important heading here

Some additional information here

Emphasized text
  • শুক্রবার, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১০ ফাল্গুন ১৪২৫
  • ||

আন্দোলনের মাধ্যমে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা হবে:মওদুদ

প্রকাশ:  ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১৬:৫৬ | আপডেট : ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১৭:০৩
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট icon

আন্দোলনের মাধ্যমে দলের চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা হবে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। তিনি বলেন, আন্দোলনের মাধ্যমে তাঁর দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে কারাগার থেকে মুক্ত করা হবে। আগামী নির্বাচনে তিনি এ দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করবেন।

সোমবার দুপুরে সুপ্রিম কোর্টে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম আয়োজিত দ্বিতীয় দিনের মতো বিক্ষোভ কর্মসূচিতে মওদুদ এসব কথা বলেন।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে সাজা দেওয়ার প্রতিবাদে আয়োজিত এ কর্মসূচিতে মওদুদ বলেন, দেশে একনায়কতন্ত্র চলছে। আইনজীবীরা আন্দোলনের মাধ্যমে খালেদা জিয়াকে কারামুক্ত করবেন। একই সঙ্গে দেশের গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে তাঁরা কাজ করে যাচ্ছেন।

কর্মসূচিতে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জয়নুল আবেদীন বলেন, খালেদা জিয়াকে মিথ্যা মামলায় সাজা দেওয়ার ঘটনা তাঁর তিন গুণ জনপ্রিয়তা বেড়ে গেছে। এ রায় শেখ হাসিনার পতনের রায়। মামলা-হামলা দিয়ে খালেদা জিয়াকে দমানো যাবে না।

জয়নুল আবেদীন বলেন, দেশের তিনবারের প্রধানমন্ত্রীকে যে মামলায় সাজা দেওয়া হয়েছে, তা আওয়ামী লীগের লোকজনও বিশ্বাস করে না। এ মিথ্যা মামলার কারণে দেশের মানুষ আওয়ামী লীগ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে।

বিক্ষোভ কর্মসূচিতে আরো বক্তব্য দেন আইনজীবী ফোরামের মহাসচিব ও বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুবউদ্দিন খোকন, তৈমূর আলম খন্দকার, আবেদ রেজা, রফিকুল ইসলাম রাজা, বদরুদ্দৌজা বাদল, গাজী কামরুল ইসলাম সজল, রাশেদা আলম ঐশী, শরীফ উ আহমেদ।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায় ঘোষণা করেন বিশেষ আদালতের বিচারক ডা. মো. আখতারুজ্জামান। রায়ে তিনি সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেন। এ ছাড়া বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ পাঁচ আসামিকে ১০ বছর করে কারাদণ্ড এবং দুই কোটি ১০ লাখ টাকা করে জরিমানা করা হয়।

রায় ঘোষণার পর পরই খালেদা জিয়াকে পুরান ঢাকার নাজিমুদ্দিন রোডের পুরোনো কেন্দ্রীয় কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়।

মামলার অন্য আসামিরা হলেন মাগুরার সাবেক সংসদ সদস্য (এমপি) কাজী সলিমুল হক কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমানকে ১০ বছর করে কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এঁদের মধ্যে তারেক রহমান, কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও মমিনুর রহমান পলাতক।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনে খালেদা জিয়া, তারেক রহমানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

২০১০ সালের ৫ আগস্ট আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন দুদকের উপপরিচালক হারুন-আর রশিদ। ২০১৪ সালের ১৯ মার্চ তাঁদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন ঢাকার তৃতীয় বিশেষ জজ আদালতের বিচারক বাসুদেব রায়। /মজুমদার

ডিভোর্স মেনে নিয়েছি, নতুন উদ্যমে কাজ শুরু করবো: অপু বিশ্বাস

apps
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত