Most important heading here

Less important heading here

Some additional information here

Emphasized text
  • বুধবার, ২০ মার্চ ২০১৯, ৬ চৈত্র ১৪২৫
  • ||
শিরোনাম

অবৈধ ভিওআইপি কলে টেলিটক শীর্ষে

প্রকাশ:  ০৮ অক্টোবর ২০১৮, ১৮:২৯
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট icon

দেশে প্রতিদিন গড়ে আনুমানিক আড়াই কোটি মিনিট অবৈধ ভিওআইপি (ভয়েস ওভার ইন্টারনেট প্রটোকল) কল হচ্ছে এবং রাষ্ট্রায়াত্ত মোবাইল অপারেটর টেলিটক ব্যবহারেই সর্বাধিক কল টার্মিনেশন করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি।

সোমবার (৮ অক্টোবর) বিটিআরসি আয়োজিত এক সংবাদ সম্মলেন এ তথ্য জানানো হয়। সংবাদ সম্মেলনে বিটিআরসির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জহুরুল হক ও মহাপরিচালক মোস্তফা কামালসহ অনন্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ৯ থেকে ২০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বিটিআরসি ও র‌্যাব যৌথভাবে ঢাকার বিভিন্ন স্থান থেকে ১০ হাজারের ওপর সিমসহ ৩৭ লাখ টাকার অবৈধ ভিওআইপি সরঞ্জাম উদ্ধার করেছে। এরমধ্যে টেলিটকের ৫ হাজার ৭৫টি, এয়ারটেল ও রবির ৩ হাজার ৮৯৭টি, গ্রামীণফোনের ১ হাজার ৪১৪টি, বাংলালিংকের ৪২৬টি, র‌্যাংকসটেলের ১২০টি এবং বাংলালায়নের ১৫টি সিম জব্দ করা হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত ৮ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

।বিটিআরসির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জহুরুল হক বলেন, বর্তমান প্রায় আড়াই কোটি মিনিট কল অবৈধ পথে দেশ আসছে। তবে বিটিআরসি এখন আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সহায়তায় অবৈধ টেলিফোনিতে জড়িত প্রতিষ্ঠানের সিমবক্সের অবস্থান চিহ্নিত করার সক্ষমতা অর্জন করেছে। এ প্রযুক্তি ব্যবহারের ফলে প্রতি বছর আন্তর্জাতিক কল আদান-প্রদান থেকে সরকারের ৫০ কোটি টাকার বেশি সাশ্রয় হবে বলে ধারণা করছি।

বিটিআরসির পক্ষ থেকে জানানো হয়, ঢাকার মোহাম্মদপুর, আদাবর, বাড্ডা এবং উত্তরা পশ্চিম থানাধীন আবাসিক ৬ টি স্থাপনায় বিটিআরসি ও র‌্যাব-এর সমন্বয়ে গত ৯ সেপ্টেম্বর থেকে ২০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত পরিচালিত অবৈধ ভিওআইপি অভিযানে বিভিন্ন মোবাইল অপারেটরের ১০ হাজার ৯৪৭ টি সিম ও প্রায় ৩৭ লক্ষাধিক টাকা মূল্যমানের অবৈধ ভিওআইপি সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়েছে এবং এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অপরাধে ৮ ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

এছাড়া, অবৈধ ভিওআইপি কাজে ব্যবহৃত বিভিন্ন ধরণের সিমপোর্ট যেমন: ৫১২, ২৫৬, ১২৮, ৩৬, ৩২, ২৪, ১৬ ও ৮ সিমপোর্ট বিশিষ্ট মোট ৭২টি জিএসএম (সিমবক্স) গেটওয়ে ও অন্যান্য আনুষঙ্গিক মালামাল জব্দ করা হয়েছে। যার আনুমানিক বাজার মূল্য ৩৬ লাখ ৮০ হাজার টাকা। এ বিষয়ে জড়িত থাকায় সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে ঢাকার মোহাম্মদপুর থানা, আদাবর থানা, বাড্ডা থানা এবং উত্তরা পশ্চিম থানায় বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ আইন-২০০১ -এর অধীনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম নিবন্ধন হওয়ার পরও অবৈধ ভিওআইপির সিম কীভাবে চালু থাকে, এ বিষয়ে সাংবাদিকরা জানাতে চাইলে বিটিআরসির মহাপরিচালক মোস্তফা কামাল বলেন, এখানে মোবাইল অপারেটরদের ভূমিকা আছে, কারণ বায়োমেট্রিক হওয়ার পর এটা হওয়ার কথা না।

তিনি বলেন, অভিযান চালানোর পর প্রতিটি সিমের তথ্য বিশ্লেষণ করে তা অপারেটরদের জানানো হয়। কারণ দর্শাতে নোটিস দেওয়া জয়। সন্তোষজনক উত্তর না পেলে জরিমানা করা হয়।

অনুষ্ঠানে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা, আইজিডব্লিউ অপারেটরস ফোরাম ও বিভিন্ন মোবাইল অপারেটরের প্রতিনিধিরাও উপস্থিত ছিলেন।

এনই

অবৈধ ভিওআইপি,টেলিটক
apps
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত