Most important heading here

Less important heading here

Some additional information here

Emphasized text
  • বুধবার, ২০ মার্চ ২০১৯, ৬ চৈত্র ১৪২৫
  • ||

অসাম্প্রদায়িক চেতনা নিয়েই দেশ এগিয়ে যাচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশ:  ১৫ অক্টোবর ২০১৮, ২২:৪৭
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট icon

ধর্মীয় সম্প্রীতি স্থাপনে বাংলাদেশ বিশ্বে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, অসাম্প্রদায়িক চেতনা নিয়েই এই বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছিল। বাংলাদেশ সেই আদর্শ নিয়েই এগিয়ে যাচ্ছে।

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে সোমবার (১৫ অক্টোবর) বিকেলে রাজধানীর টিকাটুলীতে রামকৃষ্ণ মিশন পূজামণ্ডপ পরিদর্শন শেষে তিনি এ কথা বলেন।

শারদীয় দুর্গোৎসবের শুভেচ্ছা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সুষ্ঠুভাবে, উৎসবমুখর পরিবেশে এই উৎসব হোক, সেটাই আমরা চাই।

তিনি বলেন, এখানে প্রত্যেকে ভাই-বোনের মতো প্রতিটি ধর্মীয় উৎসব পালন করে। আমরা কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে উৎসবগুলো পালন করি।

শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষ সকলেই যার যার অধিকার নিয়ে বসবাস করছে। ধর্ম যার যার, উৎসব সবার। কারা সংখ্যায় বেশি, কারা সংখ্যায় কম, স্টো বড় কথা নয়, যে যার ধর্ম স্বাধীনভাবে পালন করবে। উৎসবের সঙ্গে, স্বাধীনভাবে পালন করবে। সে অধিকার নিশ্চিত করেই বাংলাদেশ এগিয়ে চলেছে।

তিনি বলেন, প্রতিটি উৎসবে আমরা সকলে এক হয়ে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে উৎসব করি। মহান মুক্তিযুদ্ধে সকল ধর্মের মানুষ অংশ গ্রহণ করেছিল। আমাদের লক্ষ্য সকল ধর্মের মানুষের সমান অধিকার নিশ্চিত করে সকলে মিলে এক সঙ্গে প্রিয় মাতৃভূমিকে ক্ষুধা-দারিদ্রমুক্ত হিসেবে গড়ে তোলা। সেই লক্ষ্য নিয়েই সরকার পরিচালনা করে যাচ্ছি। আমরা চাই কোনো মানুষ গৃহহারা থাকবে না, ভূমিহীন থাকবে না, ক্ষুধার্থ থাকবে না।

সরকার প্রধান বলেন, বাংলা নববর্ষকে নতুন চেতনায় নিয়ে এসেছি। এই দিনটাকে সকলে মিলে এক সঙ্গে পালন করি। আমরা চেষ্টা করেছি, সকল ধর্মের মানুষের সমস্যা সমাধান করার।

সবাই মিলে একসঙ্গে দেশ গড়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে আমাদের স্বাধীনতা অর্জিত। আসুন, সবাই মিলে আমরা এই দেশকেও একসঙ্গে গড়ে তুলি।

শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ উন্নত হোক, সমৃদ্ধশালী হোক, দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ, ক্ষুধামুক্ত বাংলাদেশ হোক। এটাই ছিল জাতির পিতার স্বপ্ন।

এ সময় রামকৃষ্ণ মিশন ও মঠের স্বামীজী ধ্রুবাবেশানন্দ প্রধানমন্ত্রীর হাতে শারদীয় শুভেচ্ছা স্মারক তুলে দেন।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র সাঈদ খোকন, পুলিশের আইজিপি ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী, স্থানীয় সংসদ সদস্য কাজী ফিরোজ রশিদ।

/এসএম

প্রধানমন্ত্রী
apps
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত