Most important heading here

Less important heading here

Some additional information here

Emphasized text
  • সোমবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ৬ ফাল্গুন ১৪২৫
  • ||

৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনের নামে তামাশা হয়েছে: ফখরুল

প্রকাশ:  ২৩ জানুয়ারি ২০১৯, ২৩:৫৯
বগুড়া প্রতিনিধি
প্রিন্ট icon

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ৩০ ডিসেম্বর দেশে কোন নির্বাচনই হয়নি। এটা ছিল জাতির সাথে প্রহসন ও নিষ্ঠুর তামাশা। আওয়ামী লীগ ক্ষমতা ধরে রাখার জন্য নির্বাচনী ব্যবস্থাকেই ধ্বংস করে দিয়েছে।

বুধবার (২৩ জানুয়ারি) ঠাকুরগাঁও থেকে সড়ক পথে ঢাকায় ফেরার পথে বগুড়া শহরতলীর একটি হোটেলে বগুড়া সদর আসনের নেতাকর্মীদের সাথে মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, নির্বাচনের নামে জনগণের সাথে তামাশা করে আওয়ামী লীগ আজ গণশত্রুতে পরিণত হয়েছে। নির্বাচনের পর তারা জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। তাই আগামীতে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে, খালেদা জিয়ার মুক্তি, নেতাকর্মীদের মুক্তি, তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনতে সংগঠনকে আরো শক্তিশালী করতে হবে। বৃহত্তর ঐক্যের মাধ্যমে লড়াই সংগ্রাম করে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচনের ব্যবস্থা করতে হবে।

মির্জা ফখরুল বলেন, দেশ আজ গভীর সংকটে পড়েছে। এর আগে দেশ এতটা সংকটে কখনো পড়েছে বলে মনে হয় না। এ অবস্থায় মানুষের মনে গণতন্ত্র ও নির্বাচনের প্রতি অনাস্থা সৃষ্টি হয়েছে। তাই মানুষ আজ বলছে, এদেশ আজ প্রজাতন্ত্র না একদলীয় শাসন ব্যবস্থায় চলছে।

তিনি বলেন, এ সরকার ভালো কিছু বিশ্বাস করে না। তাই তারা নির্বাচন ব্যবস্থা কলংকিত করেছে। দেশের মানুষ ভোট দিতে পারেনি। তাই আমরা ফলাফল প্রত্যাখ্যান করেছি। এ নির্বাচন বাতিল করে নির্দলীয় সরকারের অধীনে আবারো নির্বাচনের ব্যবস্থা করতে হবে।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, এ সরকারের কারনে দেশে ভয়াবহ অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। মানুষের মুখে হাসি নাই। আমার নিজ এলাকায় নির্বাচনের দিন প্রতিটি কেন্দ্রে কর্মীদের মারপিট করার পর এখন দোকানপাট দখল করা হচ্ছে। এ অবস্থার মধ্যেও আমাকে বগুড়া সদর আসনে বিপুলভোটে নির্বাচিত করার জন্য সকলকে ধন্যবাদ। আগামী দিনের আন্দোলন সংগ্রামে বগুড়া জেলাকেই নেতৃত্ব দিতে হবে। তাই সকল ভেদাভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

বগুড়া জেলা সভাপতি ভিপি সাইফুল ইসলামের সভাপতিত্বে সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেনও উপস্থিত ছিলেন জেলা সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীন চাঁন, সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট একেএম মাহবুবর রহমান ও রেজাউল করিম বাদশা, সাবেক এমপি হেলালুজ্জামান তালুকদার লালু ও গোলাম মোহাম্মদ সিরাজ, বিএনপি নেতা আলী আজগর হেনা, লাভলী রহমান, শহর সভাপতি মাহবুবর রহমান বকুল, সদর উপজেলা সভাপতি মাফতুন আহমেদ খান রুবেল, বিএনপি নেতা অধ্যাপক ডাক্তার মওদুদ হোসেন আলমগীর পাভেল, অধ্যাপক ডাক্তার শাহ মোঃ শাহজাহান আলী, মাহবুব আলম শাহীন, হামিদুল হক চৌধুরী হিরু, পরিমল চন্দ্র দাস, সহিদ উন নবী ছালাম, রফিকুল ইসলাম, শাহ মেহেদী হাসান হিমু, অ্যাডভোকেট সৈয়দ জহুরুল আলম, নাজমা আক্তার, শাহাবুল আলম পিপলু, ছামুছুল হক রোমান, মাহবুব হাসান লেমন প্রমুখ।

/পিবিডি/একে

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর
apps
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত