• সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ৭ শ্রাবণ ১৪৩১
  • ||

ভাড়ার জন্য জুডো খেলোয়াড়কে রক্তাক্ত করল বাড়িওয়ালা

প্রকাশ:  ০৯ মার্চ ২০২২, ১০:৫৫ | আপডেট : ০৯ মার্চ ২০২২, ১৪:৪৬
সাভার প্রতিনিধি

নারী দিবসে ঢাকার সাভারে বকেয়া বাড়ি ভাড়ার জন্য স্বর্ণপদক জেতা ন্যাশনাল জুডো দলের এক নারী খেলোয়াড়কে মেরে রক্তাক্ত করার অভিযোগ উঠেছে বাড়িওয়ালার বিরুদ্ধে।

মঙ্গলবার রাতে সাড়ে ১০টার দিকে আশুলিয়ার জামগড়া মোল্লা বাড়ি এলাকায় ভাড়া বাসার তাকে মারধরের ঘটনা ঘটে।

ভুক্তভোগী সুমাইয়া আক্তার বাংলাদেশ জুডো ফেডারেশনের জাতীয় দলের খেলোয়াড়। ২০১৯ সালে সাউথ এশিয়ান গেমসে তিনি স্বর্ণ পদক জিতেছেন। এসএসসি পরীক্ষার্থী সুমাইয়া মোল্লা বাড়ি এলাকায় শফিকুল ইসলামের ভাড়া বাসায় পরিবার নিয়ে বসবাস করেন। তিনি শেরপুর জেলার নালিতাবাড়ী থানার সমুরচুরা গ্রামের মোন্তাজ আলীর মেয়ে।

সুমাইয়া আক্তার বলেন, আমি বাংলাদেশ জুডো ফেডারেশনের ন্যাশনাল দলের একজন খেলোয়াড়। সামনে আমার এসএসসি পরীক্ষা। আমার বাবা, মা ও ভাই জামগড়া এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকেন। তবে আমি এখানে থাকি না। ন্যাশনাল ফেডারেশনেই থাকি আমি। দুই-তিন দিন আগে এসেছি আম্মুর সাথে থাকব বলে।'

তিনি আরও বলেন, মঙ্গলবার রাতে বাসায় আমি পড়ছিলাম। তখন বাড়িওয়ার স্ত্রী বাসায় এসে বকেয়া বাড়ি ভাড়ার জন্য উচ্চবাচ্য করছিলেন। দু-তিন মাসের বকেয়া বাড়ি ভাড়া পেতেন তারা। আমি বলছি, যা পান দিয়ে দেব। তখন আমার সাথে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে তিনি আমাকে থাপ্পড় মারেন। আমিও তখন তাকে থাপ্পড় দিই। পরে তিনি তার স্বামী শফিকুল ও ছেলে হৃদয়কে ডেকে নিয়ে এসে আমাকে এলোপাতাড়ি মারধর শুরু করেন। আমার আম্মু বাধা দিতে গেলে তাকেও মারধর করে। এ সময় লোহার পাইপ জাতীয় কিছু একটা দিয়ে আমার মাথায় আঘাত করে। থানায় যাওয়ার পর পুলিশ আমাকে চিকিৎসা নিয়ে যাওয়ার পর আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিয়েছে।

তবে এ বিষয়ে অভিযুক্ত বাড়ির মালিক শফিকুল ইসলামসহ তার পরিবারের সদস্যদের সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

আশুলিয়া থানার ডিউটি অফিসার উপ-পরিদর্শক (এসআই) তানিম আহমেদ বলেন, রাতে এক নারী রক্তাক্ত অবস্থায় এসেছিলেন। তাকে হাসপাতালে গিয়ে চিকিৎসা নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। পরবর্তীতে লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে আইনগত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

অভিযুক্ত বাড়ির মালিক শফিকুল ইসলাম বলেন, দুই রুমের ফ্ল্যাট নিয়া নিচতলায় থাকে তারা। ৬ হাজার টাকা ভাড়া। ৪০ হাজার টাকা বাসা ভাড়া পাওনা। গেছে মাসে আমারে ৬ হাজার টাকা দিছে। তিন মাস আগে তারা বাসা ছাইড়া দেবে বলেছে। কিন্তু এই মাস শেষ হয়ে গেলেও যায়নি। এখন আমরা তো আরেক ভাড়াটিয়ারে বাসা ভাড়া দিয়া দিছি। তারাও অন্য কোথাও বাসা ছাইড়া দিয়া এই বাসায় উঠবে। এজন্য আমার স্ত্রী মঙ্গলবার রাতের বেলা তাদের কাছে গিয়েছিল। তখন কথা কাটাকাটির সময় তার মেয়ে আমার স্ত্রকে মারছে। মেয়েটা কারাতে জানে। আমার অসুস্থ স্ত্রীকে মাইরা কিছু রাখেনি। আপনার বিশ্বাস না হলে বাসার ভাড়াটিয়ারা ছিল, তাদেরকে জিজ্ঞেস করে দেখেন।

সুমাইয়াকে তার স্ত্রী আগে থাপ্পড় দেওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেন তিনি।

তবে সুমাইয়া কিভাবে রক্তাক্ত হলো এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, হয়ত ঘরের মধ্যে খাট আছে, কত কিছু আছে। সেগুলোর সাথে লাগছে ক্যামনে কমু কন?

পূর্বপশ্চিম/এমএইচ/এনএন

জুড়ো,সাভার

সারাদেশ

অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close