Most important heading here

Less important heading here

Some additional information here

Emphasized text
  • সোমবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ৬ ফাল্গুন ১৪২৫
  • ||

কালকিনিতে স্কুলছাত্রীকে পিটিয়ে জখম, ৯ জনের নামে মামলা

প্রকাশ:  ১৬ জানুয়ারি ২০১৯, ১৯:৩৯
মাদারীপুর প্রতিনিধি
প্রিন্ট icon

মাদারীপুরের কালকিনিতে এসএসসি পরীক্ষার্থীকে পিটিয়ে জখম করার ঘটনায় ৯ জনের নাম উল্লেখ করে থানায় মামলা করেছে শিক্ষার্থীর পরিবার। বুধবার (১৬ জানুয়ারি) দুপুরে ওই শিক্ষার্থীর (সৎ) মা মাহিনুর বেগম বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন। এবং বিকালে রিপন নামে একজনকে আটক করা হয়েছে।

এদিকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাতে আহত শিক্ষার্থীকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

মামলা সুত্রে জানা যায়, প্রায় এক বছর আগে কালকিনির সাহেবরামপুর এলাকার সালাম আকনের বড় ছেলে রোমন আকন (৩০) এর সাথে পাঙ্গাসিয়া গ্রামের মোফাজ্জেল হাওলাদারের মেয়ে শুকতারা আক্তারের বিয়ে হয়। কিন্তু পরবর্তীতে পারিবারিক কারণে বিয়ে ভেঙ্গে দেয় শুকতারার পারিবার। এতে ক্ষিপ্ত হয় রোমন আকনের ছোটভাই শামন আকন (২৫) স্কুলে যাওয়ার পথে প্রায়ই শুকতারাকে উত্যক্ত করতো।

এরই জেরে মঙ্গলবার (১৫ জানুয়ারি) সকালে কালকিনি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ওই শিক্ষার্থী শুকতারা আক্তার বাড়ি থেকে পায়ে হেটে প্রাইভেট পড়তে যাচ্ছিল। পথে উকিলের বাড়ির পাশে একা পেয়ে শামন আকন তার বন্ধুদের নিয়ে শুকতারাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে মাথায় ও পেটে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা ওই স্কুলছাত্রীকে অচেতন অবস্থায় কালকিনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাতে আহত শিক্ষার্থীকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। ঘটনার পর থেকে পলাতক রয়েছে শামন ও তার পরিবারের লোকজন। মামলার সুত্রে ধরে রিপন আকন নামে একজনকে আটক করেছে কালকিনি থানা পুলিশ।

শামন এর স্ত্রীর শিপ্রা আক্তার বলেন, আমাদের শুধু শুধু ফাঁসানো হচ্ছে। আমি চাই যারা এই ঘটনা ঘটিয়েছে তাদের আইনের আওতায় এনে শাস্তি দেয়া হোক। তবে কেন নিরঅপরাধ ব্যাক্তিদের ফাঁসানো হচ্ছে। আমার স্বামী ৯ জানুয়ারি থেকে ঢাকা এবং আমার ভাসুর ( স্বামীর বড় ভাই) ১৩ জানুয়ারি ইতালী থেকে ঢাকা আসছে। এখনও কালকিনির বাড়িতে আসতে পারে নাই। আমার ভাসুরের (স্বামীর বড় ভাই) বিয়ে ঠিকঠাক আগামী ১৮ই জানুয়ারি শুক্রবার, সেই কারণে গত ১৪ জানুয়ারি বিয়ের কেনাকাটা করছে। সকল প্রকার প্রমাণ আমাদের কাছে আছে। আমি চাই আমাদের অপরাধী করার আগে অবশ্যই আমাদের মোবাইল, শুকতারার (সৎ) মায়ের মোবাইল শুকতারার মোবাইল নাম্বার ট্রাকিং করা হোক।

শুকতারা (সৎ)মা মাহিনুর বেগম বলেন, আমার মেয়েকে শামন ও তার লোকজনেরাই হত্যার উদ্দেশ্য এই ঘটনা ঘটিয়েছে। আমি আমার মেয়ে হত্যা চেস্টাকারীদের দৃস্টান্তমূলক শাস্তি চাই্।

কালকিনি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মো .মোফাজ্জেল হোসেন বলেন, শুকতারা মা বাদী হয়ে একটি মামলা করেছে। আমরা একজনকে সন্দেহমূলক আটক করেছি। মামালার অন্যদের আটকসহ তদন্ত করে ব্যবস্থা নেবো।

মাদারীপুরের পুলিশ সুপার সুব্রত কুমার হালদার বলেন, মামলায় শামন, রোমন আকনসহ তার পরিবারের লোকজনকে আসামি করা হয়। আসামিদের ধরতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

পিবিডি/পি.এস

মাদারীপুর,স্কুলছাত্রী,পিটিয়ে জখম
apps
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত