Most important heading here

Less important heading here

Some additional information here

Emphasized text
  • বৃহস্পতিবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ৯ ফাল্গুন ১৪২৫
  • ||

চরফ্যাশনে ওসির বিরুদ্ধে জেলেদের কাছে চাঁদা দাবির অভিযোগ

প্রকাশ:  ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ২৩:১০
ভোলা প্রতিনিধি
প্রিন্ট icon

ভোলার চরফ্যাশন উপজেলায় জেলেদের ঘরে অভিযান চালিয়ে অবৈধ জাল জব্দ করার নামে চাঁদা দাবি করার অভিযোগ উঠেছে দক্ষিণ আইচা থানার ওসি মাসুম তালুকদারের বিরুদ্ধে। এ সময় উত্তেজিত জেলেরা তাকে অবরুদ্ধ রাখেন। পরে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা তাকে উদ্ধার করেন।

মঙ্গলবার (১২ ফেব্রুয়ারি) বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে উপজেলার দক্ষিণ আইচা থানাধীন বিচ্ছিন্ন চর কুকরিমুকরি ইউনিয়নের চর পাতিলা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক জেলে অভিযোগ করে বলেন, মঙ্গলবার দক্ষিণ আইচা থানার ওসি মাসুম তালুকদার চর পাতিলা গ্রামে অবৈধ জাল উদ্ধারের নাম করে জেলেদের ঘরে ঘরে অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণ জাল উদ্ধার করে একটি নির্দিষ্ট স্থানে স্তুপ করে রাখে। এরপর জেলেদেরকে সমঝোতার কথা বললে জেলেরা রাজি না হওয়ায় জব্দকৃত জালে আগুন ধরিয়ে দেয়। এ ঘটনায় ক্ষুব্দ জেলেরা ওসি ও তার সঙ্গীয় ফোর্সদের অবরুদ্ধ করে রাখে। পরে চর পাতিলা ইউপি সদস্য মো. বাদশা ও সাবেক ইউপি সদস্য আবুল কাশেম জেলেদের কাছ থেকে ওসিকে উদ্ধার করে নিয়ে আসে।

চরফ্যাশন উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মারুফ হোসেন মিনার বলেন, জেলেদের অবৈধ জাল জব্দ ও পোড়ানো ক্ষেত্রে অভিযান পরিচালনা করতে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও মৎস্য বিভাগের জনবল নিয়ে অভিযান চালানোর নিয়ম রয়েছে। তবে তার এ ধরণের অভিযানের বিষয়টি আমার জানা নেই।

দক্ষিণ আইচা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাসুম তালুকদার মুঠোফোনে জানান, মঙ্গলবার চর পাতিলায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল্লাহ আর মামুনসহ অবৈধ জাল জব্দ করে পোড়ানোর সময় স্থানীয়রা জেলেরা ক্ষুব্দ হয়ে উঠে। পরে তারা জাল পুড়িয়ে দিয়ে সেখান থেকে চলে আসে। তিনি কোনো চাঁদা দাবি করেননি এবং তাকে কেউ অবরুদ্ধ করেনি।

তবে এব্যাপারে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, তিনি সকাল থেকে চরফ্যাশন থনার চার জন পুলিশ সদস্য নিয়ে আট কপাট এলাকার মেঘনা নদীতে অভিযান চালিয়েছেন। তিনি ওসি মাসুম তালুকদারের সাথে যাননি। এব্যাপারে তিনি কিছুই জানে না।

/অ-ভি

apps
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত