Most important heading here

Less important heading here

Some additional information here

Emphasized text
  • বুধবার, ২০ মার্চ ২০১৯, ৬ চৈত্র ১৪২৫
  • ||

পাকুন্দিয়ায় ফ্রুট ব্যাগিং পদ্ধতিতে বিষমুক্ত কলা চাষ

প্রকাশ:  ১৫ মার্চ ২০১৯, ১৩:৫৯
পাকুন্দিয়া প্রতিনিধি
প্রিন্ট icon

কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলায় ফ্রুট ব্যাগিং পদ্ধতিতে কলা চাষে দিন দিন আগ্রহ বাড়ছে চাষীদের। এ পদ্ধতিতে কীটনাশক প্রয়োজন হয় না, পোকা-মাকড় আক্রমণ করতে পারে না। ফলে রোগ ও বিষমুক্ত থাকায় কলা উৎপাদনে ফ্রুট ব্যাগিং পদ্ধতি ব্যাপক সাড়া ফেলেছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, গত বছর উপজেলার আঙ্গিয়াদী গ্রামের কৃষক বিল্লাল হোসেন ও ফজলু মিয়া এবং পাশ্ববর্তী খামা গ্রামের কৃষক রাজ্জাক মিয়া প্রথমে তিন বিঘা জমিতে ফ্রুট ব্যাগিং পদ্ধতিতে কলা চাষ শুরু করেন। এ পদ্ধতিতে তারা ব্যাপক সফলতা পায়।

তাদের এ সফলতা দেখে উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের কৃষকদের মাঝে এ পদ্ধতিটি ব্যাপক সাড়া ফেলেছে। এ কারনে কলা চাষীর সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ওই গ্রামের জমি গুলোতে সারি সারি কলা গাছ রোপন করা হয়েছে। গাছ গুলোতে ঝুলছে বিশেষ ধরনের পলিথিন ব্যাগ। এ পলিথিন ব্যাগ দিয়েই মুড়িয়ে দেয়া হয়েছে কলার কাদি।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, কলার প্রধান শত্রু হলো বিটল পোকা। পোকাটি দেখতে আকারে ছোট, গায়ের রং বাদামি ও শক্ত। এদের পা গুলো কাঁটাযুক্ত। কলা গাছে যখন মোচা বের হতে থাকে তখনই মোচা গুলোতে বিটল পোকা আক্রমণ করে থাকে। এ সময় ওরা কলার ফুলের রস চুষে খেয়ে ফেলে।

এতে অধিকাংশ কলা আকারে চিকন ও ছোট হয়ে যায়। পাশাপাশি কলার ফলনও কমে যায়। এছাড়াও বিটল পোকা তার কাঁটাযুক্ত পায়ে যখন অপরিপক্ক কলার ওপর হাটাহাটি করে তখন তার পায়ের আঘাতে কলার গায়ে দাগ পড়ে যায়। দাগ গুলো দেখতে অনেকটা বসন্ত রোগের দাগের মত। কলা যখন বড় হতে থাকে দাগ গুলোও সাথে সাথে বড় হতে থাকে।

এ জন্য কলা গুলোকে দেখতে খুবই বিশ্রী দেখায়। ফলে বাজারে উপযুক্ত দাম পাওয়া যায় না। কৃষক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ফ্রুট ব্যাগিং পদ্ধতি ব্যবহার করলে ওই বিটল পোকা আর আক্রমণ করতে পারে না। ফলে কীটনাশের প্রয়োজন হয় না। এতে কলা উৎপাদনে কৃষকের খরচ কমে যায়। কৃষক বাজারে দামও ভালো পায়। লাভও ভাল হয়। কলা থাকে নিরাপদ ও বিষমুক্ত।

আঙ্গিয়াদী গ্রামের কৃষক বিল্লাল হোসেন বলেন, কলার আকার বড় ও রং ফর্সা করতে এবং পোকা-মাকড়ের আক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে আগে কলায় প্রচুর পরিমাণে কীটনাশক ব্যবহার করতাম। উপজেলা কৃষি অফিসের পরামর্শ ও সহযোগিতায় এ পদ্ধতি ব্যবহার করায় কলায় আর কীটনাশক ব্যবহার করতে হয়নি। তিনি বলেন, এ পদ্ধতিতে কলা উৎপাদন করলে বিষমুক্ত কলার পাশাপাশি মানুষ রোগ বালাই থেকে রক্ষা পাবে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সাইফুল হাসান আলামিন বলেন, এ উপজেলায় ফ্রুট ব্যাগিং পদ্ধতিতে কলা চাষ দিন দিন জনপ্রিয়তা লাভ করছে। এ পদ্ধতির কলা চাষে কীটনাশক ব্যবহার করতে হয় না। ফলে কৃষকের খরচ কম হয় এতে কৃষক লাভবান ও খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত হয়।

পিবিডি/আর-এইচ

apps
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত