• মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ১০ বৈশাখ ১৪৩১
  • ||

দামি ফ্ল্যাগশিপ স্মার্টফোন কেনার সুবিধা-অসুবিধা

প্রকাশ:  ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৭:৩২ | আপডেট : ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৮:০২
পূর্বপশ্চিম ডেস্ক

কারিগরি দিক থেকে সঙ্গতিপূর্ণ হওয়ার পাশাপাশি স্মার্টফোন কেনার সময় সিদ্ধান্ত গ্রাহকের ব্যক্তিগত পছন্দ যুগপৎ ভূমিকা রাখে। হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যারে ব্র্যান্ডের নিজস্বতা এবং মূল্য সংযোজন পরিষেবার ভিত্তিতে বিশেষায়িত হয় মোবাইল ফোনের নির্ভরযোগ্যতা। আর এখানেই প্রশ্ন আসে গ্রাহকের ক্রয়ক্ষমতার। ব্যয় করা অর্থের বিনিময়ে সঠিক সেবাটি মিলছে কি-না, এখানে সেটিই মুখ্য বিষয়। হোক সেটা দামি ফ্ল্যাগশিপ অথবা মিডরেঞ্জার; সব ক্ষেত্রেই মূল্যের ন্যায্যতা যাচাই আবশ্যক। তবে প্রথম সারির ব্র্যান্ডের মোবাইল ফোনগুলো স্বভাবতই একটু সংবেদনশীল। কেননা এর সঙ্গে জড়িত থাকে বিরাট অঙ্কের বিনিয়োগ। তাই চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে যাওয়ার আগে চলুন ফ্ল্যগশিপ ফোনগুলো কেনার সুবিধা ও অসুবিধাগুলো জেনে নেওয়া যাক।

শক্তিশালী ও টেকসই গঠন ফ্ল্যাগশিপ ফোনের স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্যগুলোর মধ্যে একটি। গ্লাস এবং ধাতুর মতো মানসম্পন্ন অনেক উপকরণ এগুলোকে মসৃণ ও আকর্ষণীয় লুক দেয়। এছাড়া দুর্ঘটনাজনিত যেকোনো ধাক্কায় প্রতিরোধী হওয়ায় এগুলো বেশ দীর্ঘস্থায়ী হয়। এমনকি এই গুণাগুণের ধারা বজায় রেখে মোবাইল ফোনের নতুন মডেলগুলোকে আরও উন্নত করা হয়।

যুগোপযোগী প্রযুক্তির সঙ্গে খাপ খাওয়ানোটা যেকোনো স্মার্টফোনের দামি ফ্ল্যাগশিপ ফোন কেনার সুবিধা-অসুবিধাটি গ্রাহকের নির্ভরতা ও আগ্রহ বাড়ায়। ফোনের অপারেটিং সিস্টেমসহ এর সঙ্গে সম্পর্কিত ডিফল্ট সফটওয়্যারগুলো নিয়মিত আপগ্রেড ফোনকে উন্নত প্রযুক্তির জন্য সহায়ক করে তোলে। এতে ফোনের ব্যবহার আরও সহজ এবং নিরবচ্ছিন্ন হয়ে ওঠে। একই সঙ্গে অটুট থাকে ফোনের নিরাপত্তাজনিত বিষয়গুলোও।

হার্ডওয়্যারের দিক থেকে ফ্ল্যাগশিপ ফোনগুলো বিশ্বজুড়ে সর্বস্বীকৃত। প্রসেসর, স্ক্রিন, র‍্যাম, ক্যামেরা এবং স্টোরেজের বিচারে সর্বশ্রেষ্ঠ ফোন খোঁজা হলে ফ্ল্যাগশিপ ফোনগুলোর নামই আসবে। ব্র্যান্ডগুলো সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে এই হার্ডওয়্যারগুলোর সন্নিবেশ ঘটিয়ে থাকে।

শুধু উৎপাদন করেই শেষ নয়; প্রথম সারির ব্র্যান্ডগুলো তাদের বিক্রি-পরবর্তী পরিষেবার প্রতিও বেশ যত্নশীল। এই গ্যারান্টি এবং ওয়ারেন্টির জন্যই মূলত নির্ভরতার জায়গাটি তৈরি হয়। এতে হঠাৎ কোনো সমস্যা হলে তার সমাধান নিয়ে গ্রাহকদের দুশ্চিন্তায় পড়তে হয় না। কেননা তারা জানেন যে, যান্ত্রিক ত্রুটিগুলো নিয়ে কাজ করার জন্য ইতোমধ্যে দক্ষ কর্মীরা নিবেদিত রয়েছেন।

যারা ঘন ঘন মোবাইল ফোন পরিবর্তনের বিড়ম্বনায় পড়তে চান না তাদের জন্য এই ব্র্যান্ডগুলো এক বিশাল কমফোর্ট জোন তৈরি করে।

দীর্ঘ দিন ধরে বাজার ধরে রাখা ও মৌলিকতা এই ফোনগুলোতে কিছুটা অ্যান্টিক আবহ সংযোজন করে। ফলে অন্যান্য স্মার্টফোনগুলোর তুলনায় এগুলোর ডেপ্রিসিয়েশন কষ্ট বা অবচয় খরচ অনেক কম থাকে। তাই অনেক দিন ব্যবহারের পরেও বিক্রি বা বিনিময় করে অন্য ফোন কেনার সময় বেশ ভালো দাম পাওয়া যায়। এই রিসেলিং মূল্যের কারণে গ্রাহকরা নিশ্চিন্তে দামি ব্র্যান্ডের ফোনে বিনিয়োগ করতে আকৃষ্ট হন।

উচ্চমানের ব্র্যান্ডের ফোনে বিনিয়োগকারীদের এই পরিধিটা বেশ সংকীর্ণ। স্বভাবতই এগুলোর দাম সময়ের সঙ্গে সঙ্গে আকাশচুম্বী হতে থাকে। তাই সেই সীমিত শ্রেণীর বাইরে পড়ে যান বাজেট ফোন ক্রেতা থেকে শুরু করে নতুন প্রযুক্তি উৎসাহীরা। প্রায়ই দেখা যায় নতুন কোনো সিরিজ চালু করার সময় তাতে নতুন প্রযুক্তির ফিচার যোগ করা হয়। সময়ের সঙ্গে প্রযুক্তির বিকাশ গতিশীল হয়ে ওঠায় প্রতি বছরই কিছু না কিছু নতুন ফাংশনের আগমন ঘটে। তাৎক্ষণিকভাবে এগুলোর সঙ্গে পরিচিত এবং অভ্যস্ত হওয়া মানেই বিশাল খরচের ধাক্কা।

নিজস্বতা এবং মৌলিকতাকে পাশ কাটিয়ে শুধুমাত্র ব্যবহারের দিকে দৃষ্টিপাত করলে বেশ বড়সড় প্রতিদ্বন্দ্বিতার সম্মুখীন হয় ফ্ল্যাগশিপ স্মার্টফোনগুলো। অপারেটিং সিস্টেম, ক্যামেরা, ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্ক্যানারসহ যাবতীয় উন্নত সুবিধা এখন কম দামের ফোনেই পাওয়া যাচ্ছে। পছন্দমতো উচ্চ রেজুলেশনের সেলফি থেকে শুরু করে প্যানোরামা শট সবকিছু নেওয়া যায়। শুধু তাই নয়, ইচ্ছেমতো সম্পাদনা করে তা তাৎক্ষণিকভাবে পোস্ট করা যায় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে।

স্ট্যান্ডার্ডের নিচে ক্যামেরা-সম্বলিত মোবাইল ফোন এখন বাজারে প্রায় নেই বললেই চলে। বিগত পাঁচ বছরে মিডরেঞ্জের ফোনগুলোতে ক্যামেরা এতটাই উন্নত হয়েছে যে তা দিয়ে যেকোনো পেশাদার ভিডিও কন্টেন্ট বানানো সম্ভব। বর্তমানে ফটোগ্রাফি উৎসাহীদের এই সেরা পছন্দগুলো ফ্ল্যাগশিপ সেটগুলোর মতোই কাজ করতে পারে। ফলশ্রুতিতে, দামি ব্র্যান্ডের ফোন কেনা আসলেই লাভজনক কি-না, তা নিয়ে সন্দেহের উদ্রেক করে।

ফোনের সাধারণ কাজগুলোর মধ্যে রয়েছে কল করা, বার্তা পাঠানো, ওয়েব ব্রাউজিং, সোশ্যাল মিডিয়া চেক করা, ভিডিও স্ট্রিমিং, ছবি তোলা, গান শোনা এবং গেম খেলা। বর্তমানে সবচেয়ে কম দামের স্মার্টফোনটিতেও এর সবগুলোই সম্ভব। মিডরেঞ্জের ফোনগুলো এই অভিজ্ঞতার উদ্দীপনাকে আরও বাড়িয়ে দেয়। তবে দীর্ঘক্ষণ ভিডিও রেকর্ড ও গেম খেলার মতো ভারী কাজগুলোর বেলায় সর্বাধিক চাপ পড়ে ব্যাটারির ওপর। এক্ষেত্রে সাধারণত ব্যাটারি তেমন বেশি সময় স্থায়ী হয় না।

অন্যদিকে ফ্ল্যাগশিপের ফোনগুলোর ব্যাটারি অনেকক্ষণ ব্যাক-আপ দেয়। কেননা এগুলোর ক্ষমতা থাকে বেশি, সেই সঙ্গে এগুলোর আকারও বেশ বড়। এ কারণে এগুলো কিছুটা ঝুঁকিপূর্ণও থাকে। বিশেষ করে কোনো কাজে ফোন খুলে ব্যাটারি বের করায় দুর্ঘটনাজনিত আকস্মিক বিস্ফোরণ ঘটতে পারে। আর এই আশঙ্কা দূর করতেই অধিকাংশ ব্র্যান্ডগুলোতে এখন আর রিমুভেবল ব্যাটারি দেওয়া হয় না।

বিভিন্ন দিক থেকে এটি সুবিধাজনক হলেও একটা বড় সমস্যা থেকে যায়। আর সেটি হচ্ছে ফোনগুলো আগের তুলনায় কম মেরামতযোগ্য হবে। অর্থাৎ একবার কোনো ত্রুটি ধরা পড়লেই পুরো ফোন পরিবর্তনের প্রয়োজন পড়বে। আর যেগুলোতে রিমুভেবল ব্যাটারি রয়েছে সেগুলোতে নিরাপত্তার ঝুঁকি তো থাকছেই।

পণ্যকে পরিবেশবান্ধব করা এবং ফোনের বাক্সের আকার ছোট ও হাল্কা করা। মূলত এই দুই কারণে প্রথম সারির ফোন কোম্পানিগুলো পাওয়ার অ্যাডাপ্টার বাদ দিয়ে দিচ্ছে। কিন্তু এই ব্যবসায়িক কৌশলটি দীর্ঘ দিন ধরে অব্যাহত থাকা ফোনের স্ট্যান্ডার্ডকে বিনষ্ট করছে।

কেননা প্রথমত, কেনার সময় যে চার্জারটি দেওয়া হয় সেটি ফোনের জন্য নিখুঁতভাবে সঙ্গতিপূর্ণ করা থাকে। এটি ছাড়া গ্রাহকরা বাইরে অন্য কোথাও থেকে নতুন কোনো চার্জার কিনলে তা ব্যাটারির ক্ষতি করতে পারে। এখনকার ফোনগুলোতে সাধারণভাবেই ফাস্ট চার্জিং প্রয়োজন হয়। ধরা যাক, ৪৫ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং-এর কোনো ফোনে ১৫ ওয়াটের খুব ভালো কোনো চার্জার দিয়ে চার্জ করা হলো। এখানে চার্জার ভালো হওয়ায় কোনো ত্রুটির আশঙ্কা না থাকলেও ফোন চার্জ হতে অনেক সময় লেগে যাবে।

সমীক্ষা: দাম্পত্য সম্পর্কে ফাটল ধরাচ্ছে স্মার্টফোনসমীক্ষা: দাম্পত্য সম্পর্কে ফাটল ধরাচ্ছে স্মার্টফোন দ্বিতীয়ত, আলাদাভাবে একটি ফাস্ট চার্জার কেনা হলে সেটিও একটি বাক্সেই আসবে। তাই কার্বন নির্গমন এবং বর্জ্য তৈরির সম্ভাবনা এখানেও থেকে যাচ্ছে।

স্বনামধন্য স্মার্টফোনগুলোর স্ট্যান্ডার্ডগুলোর মধ্যে আরও একটি স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্য হচ্ছে মাইক্রোএসডি কার্ড স্লট। স্মার্টফোনের ভেতরে অন্যান্য প্রয়োজনীয় উপাদানগুলোর জায়গা সংকুলানের জন্য এই স্লটটিও বাদ দিয়ে দেওয়া হচ্ছে। তার মানে দামি ফোনগুলোর কেনার পরে আলাদাভাবে এক্সটারনাল স্টোরেজ কিনে নিতে হবে।

ফোনের সাধারণ কাজগুলোর জন্য ১২৮ জিবি (গিগাবাইট) বিল্ট-ইন বা ইন্টারনাল স্টোরেজই যথেষ্ট। কিন্তু গেম খেলা, সিনেমা ডাউনলোড করে দেখা এবং ছবি ও ভিডিও সম্পাদনের জন্য আরও বেশি স্টোরেজের প্রয়োজন হয়। তাছাড়া ব্যাকগ্রাউন্ডে একাধিক অ্যাপ চালু থাকা অবস্থায় কোনো প্রতিবন্ধকতা ছাড়া নিরবচ্ছিন্ন কাজের নিশ্চয়তা দেয় মাইক্রোএসডি কার্ড।

দামী ফ্ল্যাগশিপ ফোন কেনার এই সুবিধা ও অসুবিধাগুলো ফোনের মূল্যের ন্যায্যতা যাচাইয়ে সহায়ক ভূমিকা পালন করতে পারে। খুব সংকীর্ণ শ্রেণী হলেও ফ্ল্যাগশিপ ফোনগুলোর ক্লাসিক নকশায় গ্রাহকদের একরকম কমফোর্ট জোন থাকে। এখানে মুখ্য বিষয় হচ্ছে- দীর্ঘ সময় ধরে ফোনটির ব্যবহার যোগ্যতা, যেটি প্রাধান্য পায় বাজেটনির্ভর ফোন ক্রেতাদের কাছেও।

অন্যদিকে ইলেক্ট্রনিক পণ্যে ফ্যাশন সচেতনতার সঙ্গে যুক্ত হয় উন্নত প্রযুক্তিতে অভ্যস্ত হওয়ার প্রয়োজনীয়তা। এক্ষেত্রে ফ্ল্যাগশিপ ও মিডিরেঞ্জারগুলোর প্রতিদ্বন্দ্বিতার শেষ গন্তব্য থাকে ফোন ব্যবহারকারীদের ক্রয়ক্ষমতা। এখানে চূড়ান্ত ফলাফল গড়ে দিতে পারে ব্যবহার-পরবর্তী রিসেলিং ভ্যালু এবং কেনার মূহুর্তে ফোনের সঙ্গে থাকা প্রয়োজনীয় সামগ্রী।

প্রযুক্তি,স্মার্টফোন,মোবাইল ফোন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close