• শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪, ১৭ ফাল্গুন ১৪৩০
  • ||

লেখক-পাঠকদের সম্মাননা জানালো বুকওয়ার্ম অ্যাসোসিয়েশন

প্রকাশ:  ১৯ জানুয়ারি ২০২৪, ১৬:০০ | আপডেট : ২৩ জানুয়ারি ২০২৪, ১৮:০০
নিউজ ডেস্ক

বাংলাদেশ বুকওয়ার্ম অ্যাসোসিয়েশনের ৬ষ্ঠ বর্ষপূর্তি উপলক্ষে ‘বইপড়া ও সাহিত্য কোন পথে’ শীর্ষক আলোচনা সভা, ‘লেখকের গল্প সিজন-২’ এর বিশেষ সাক্ষাতকারের সাফল্য উদযাপন, লেখক-পাঠকদের সম্মাননা প্রদান এবং মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

১৯ জানুয়ারি রাজধানীর বাংলামোটর সংলগ্ন ইস্কাটন রোডের লোক প্রশাসন অডিটোরিয়ামে এ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে বিশেষ অবদানের জন্য ৩০ জন লেখক, দেশের সক্রিয় ফেসবুক কমিউনিটি, সামাজিক সংগঠন, বইভিত্তিক সংগঠন, ইনফ্লুয়েন্সার, বুক-রিভিউয়ার ও সাহিত্যানুরাগীদেরকে বিশেষ সম্মাননা প্রদান করা হয়।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে কবি ও সাহিত্যিক ফয়েজ আলম বলেন, আগে পত্রিকার সম্পাদক-সাহিত্য সম্পাদকদের হাতে সাহিত্য জিম্মি ছিল। তারা ঠিক করতেন কাকে লেখক বানাবেন, কাকে নয়। এখন যে কোনো লেখক ইন্টারনেটের মাধ্যমে তার লেখা সহজেই পড়ুয়াদের কাছে হাজির করতে পারছেন। এখন দৈনিক পত্রিকার সাহিত্য পাতার ‘বেল নেই’। এটা পুরোই একটা বিপ্লব। লেখকরা তাদের বাক-স্বাধীনতা ফিরে পেয়েছেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মোশতাক আহমেদ বলেন, প্রযুক্তির একটা ভালো দিক হলো, বর্তমানে পিডিএফে বই পড়তে পারছেন মানুষ। অডিওবুকও মানুষ সহজে শুনতে পারছেন, এখানে প্রযুক্তির অবদান আছে।

বাংলাদেশ বুকওয়ার্ম অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও প্রধান নির্বাহী নাহিদ বাদশা বলেন, শুধুমাত্র জনপ্রিয় সাহিত্যিকরাই ভালো লিখেন, আর বাকিরা লিখতে পারে না- এমন টেন্ড প্রচলিত আছে আমাদের সোসাইটিতে। কিন্তু আমরা বেশ ভালো করেই জানি, অজনপ্রিয় সাহিত্যিকরাও বেশ ভালো লেখেন। আর সেটাই বুকওয়ার্ম দীর্ঘদিন থেকে দেখানোর চেষ্টা করেছে।

অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কবি শফিকুল ইসলাম, লেখক জোহরা পারুল, গবেষক ইমরান মহফুজ। এ ছাড়া, উপস্থিত ছিলেন ‘লেখকের গল্প সিজন-১ ও ২’ এর উল্লেখ্যযোগ্য সম্পাদক ও প্রকাশক নাহিদা আশরাফী, কবি পলিয়ার ওয়াহিদ, কথাসাহিত্যিক শফিক রিয়ানসহ বুক রিভিউয়ার, ইনফ্লুয়েঞ্জার ও কন্টেন্ট ক্রিয়েটররা।

বই,লেখক
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close