Most important heading here

Less important heading here

Some additional information here

Emphasized text
  • বুধবার, ২০ মার্চ ২০১৯, ৬ চৈত্র ১৪২৫
  • ||
শিরোনাম

যতই শান্তিপূর্ণ দেশ হোক সর্বোচ্চ নিরাপত্তা চাইলেন সুজন

প্রকাশ:  ১৬ মার্চ ২০১৯, ১৪:৩৬ | আপডেট : ১৬ মার্চ ২০১৯, ১৬:২৪
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রিন্ট icon

ক্রাইস্টচার্চে হামলায় অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে গেছেন বাংলাদেশ জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা। সন্ত্রাসী এ হামলায় ৪৯জন নিহতের ঘটনায় শোকে স্তব্ধ এখন পুরো নিউজিল্যান্ড।বিশ্বের অন্যতম শান্তিপূর্ণ দেশ নিউজিল্যান্ড । কিন্তু সেই শান্তির দেশেই এবার বয়ে গেলো অশান্তির ঝড়।

শুক্রবার(১৫ মার্চ) জুমার নামাজের সময় ক্রাইস্টচার্চের আল নূর ও লিনউড মসজিদে এ হামলার ঘটনা ঘটে। শুক্রবার স্থানীয় সময় বেলা দেড়টার দিকে মসজিদে জুমার নামাজ শুরুর ১০ মিনিটের মধ্যে একজন বন্দুকধারী সিজদায় থাকা মুসল্লিদের ওপর এলোপাতারি গুলি ছুড়ে। এতে ৪৯জন নিহত হয়েছেন।এদের মধ্যে বাংলাদেশি দুজন রয়েছেন।ওই মসজিদে নামাজ পড়তে যাচ্ছিলেন তামিম-মাহমুদুল্লাহরা। পরে এক পথচারীর কাছ থেকে সংবাদ পেয়ে হোটেলে ফিরে আসেন তারা। এতে প্রাণে বেঁচে যান বাংলাদেশ জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা।

এদিকে, যতই শান্তিপূর্ণ দেশ হোক সর্বোচ্চ নিরাপত্তা চাই বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) গেম ডেভলপমেন্ট কমিটির হেড ও পরিচালক খালেদ মাহমুদ সুজন। আজ শনিবার দুপুরে বিসিবি একাডেমি মাঠে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

সুজন বলেন, নিউজিল্যান্ড শান্তিপ্রিয় দেশ হওয়ায় তারাও নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করেনি। এখন যেহেতু ওখানে ঘটে গেছে, ভবিষ্যতে যতই শান্তিপ্রিয় দেশ হোক আমরা সর্বোচ্চ নিরাপত্তা চাই। এখন থেকে বিসিবিও নিরাপত্তা দল পাঠিয়ে নিরাপত্তার ক্লিয়ারেন্স নিবে। যেকোনো দেশেই হোক নিরাপত্তাটা এখন সর্বোচ্চ বিবেচনায় থাকবে বলে জানিয়েছেন বিসিবির এই পরিচালক।

নিউজিল্যান্ডে হামলার এই ভয়াবহ ট্রমা কাটিয়ে উঠতে খেলোয়াড়দের জন্য কোনো সমস্যা হবে কি না-এমন প্রশ্নের জবাবে সুজন বলেন, এটার প্রয়োজন নেই। কারণ, তামিমরা বেড়ে উঠেছেন, মেন্টালি শক্ত হয়েছেন। তার মতে, এটা কিন্তু এমন না যে বিশ্বে এটা প্রথম ঘটেছে। এ সময় হলি আর্টিজানের কথা উল্লেখ করে সুজন বলেন, এগুলো তারা আগেও দেখেছে, এই হামলার প্রভাব থাকবে না।

প্রসঙ্গত, গতকাল শুক্রবার নিউজিল্যান্ডে ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় ৪৯ জন মুসল্লি নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও ৪৮ জন। নিহত ৪৯ জনের মধ্যে ক্রাইস্টচার্চের আল নুর মসজিদের ৪১ জন এবং লিনউডের আরেকটি মসজিদে আটজন মুসল্লি রয়েছেন। আর এই সন্ত্রাসী হামলার সময় আল নুর মসজিদে নামাজ পড়তে যাওয়ার সময় অল্পের জন্য বেঁচে যান বাংলাদেশের ক্রিকেট দলের খেলোয়াড়রা।

সেই সাথে বাতিল করা হয়েছে বাংলাদেশ-নিউজিল্যান্ডের তৃতীয় ও শেষ টেস্ট। শনিবার দেশে ফিরে আসছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট দল।

/এস কে

apps
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত