Most important heading here

Less important heading here

Some additional information here

Emphasized text
  • মঙ্গলবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ৭ ফাল্গুন ১৪২৫
  • ||

মহাসড়কে অবৈধ

সিএনজি চলাচলে বাধা, পুলিশের গাড়িতে হামলা

প্রকাশ:  ২২ জানুয়ারি ২০১৯, ১৬:০২
ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি
প্রিন্ট icon

ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে অবৈধ সিএনজি চলাচলে বাধা দেয়ায় পুলিশের গাড়িতে হামলায় তিন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন । এসময় পুলিশের গাড়ী ভাঙচুর করে চালকরা। খবর পেয়ে ভৈরব হাইওয়ে পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থলে গেলে সিএনজি চালকরা পালিয়ে যায়। হামলায় আহত হয়েছে পুলিশ সার্জেন্ট সাইরুল ইসলাম, পুলিশ কনেস্টেবল জহিরুল, কনেস্টেবল এনায়েত ।

মঙ্গলবার (২২ জানুয়ারি) বেলা ১১টায় রায়পুরা উপজেলার নীলকুটি বাসস্ট্যান্ড এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটে।

এ ঘটনায় পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে দুইজনকে আটক করে। পুলিশের হাতে আটককৃতরা হলো সিএনজি চালক হানিফ মিয়া (৬০) ও ওয়ার্কশপ কর্মচারী শফিকুল ইসলাম (৪০)।

প্রতক্ষ্যদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সরকারী নিষেধ থাকা সত্ত্বেও ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে প্রতিদিন সিএনজি চলাচল করছে। গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় ভৈরব হাইওয়ে থানার পুলিশ সার্জেন্ট সাইরুল ইসলাম নরসিংদির রায়পুরা থানা এলাকার নীলকুটি নামক স্থানে কয়েকটি সিএনজির ড্রাইভারকে মহাসড়কে সিএনজি চলাচলে বাধা দেয়।

এসময় এলাকার পুলিশের সোর্স শিপন পুলিশকে সহযোগীতা করে বলে ড্রাইভারদের অভিযোগ। পরে ড্রাইভাররা একজোট হয়ে শিপনকে হুমকি দেয়। ঘটনাটি সে (শিপন) রাতেই পুলিশকে জানায়। খবর পেয়ে পুলিশের সার্জেন্ট সাইরুল ইসলাম আজ সকালে একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে আসলে এই এলাকার ড্রাইভার শফিকুলের নেতৃত্বে প্রায় ১৫/২০ জন ড্রাইভার পুলিশের গাড়িতে ইট পাটকেল দিয়ে আক্রমণ শুরু করে। ঘটনার সময় ড্রাইভার মোরশেদ, সুজন, আতিক, সুমনসহ আরও কয়েকজন ড্রাইভার পুলিশকে মারধোর করে। এসময় সার্জেন্ট সাইরুল, পুলিশ কনেস্টেবল জহিরুল, কনেস্টেবল এনায়েত আহত হয়। এই খবর পেয়ে ভৈরব হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ তরিকুল ইসলাম আরও একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছলে ড্রাইভাররা পালিয়ে যায়।

এসময় নীলকুটি বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে ৩/৪ টি সিএনজি আটক করে ভৈরব হাইওয়ে থানায় নিয়ে যায়। অপরদিকে ড্রাইভারদের অভিযোগ সিএনজিতে গ্যাস নিতে ড্রাইভারগণ মহাসড়ক দিয়ে ভৈরব যায় কিন্ত সিএনজি মহাসড়কে চলাচল করে না। পুলিশের সোর্স শিপন সিএনজির ড্রাইভারদের কাছ থেকে অবৈধ টাকা আদায় করতে পুলিশকে সহযোগীতার নামে প্রতিনিয়ত হয়রানি করছে। একারণে শিপনের বিচার করতে তারা ঘটনার প্রতিবাদ করলে এই ঘটনাটি ঘটে বলে জানায় ড্রাইভাররা। ঘটনার পর পর নীলকুটি এলাকার বাসস্ট্যান্ডের সকল সিএনজির ড্রাইভার সিএনজি নিয়ে পালিয়ে যায়। মঙ্গলবার দুপুর ১টায় পুলিশ অপরাধীদেরকে ধরতে ওই এলাকায় সাঁড়াশি অভিযান চালাচ্ছে।

ভৈরব হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ তরিকুল ইসলাম জানান, মহাসড়কে সিএনজি চলাচল সরকারীভাবে নিষেধ হলেও চালকরা এই নিষেধ প্রতিদিন অমান্য করছে। মহাসড়কে তিন চাকার গাড়ি চলাচলের কারণে প্রতিনিয়ত ঘটছে দুর্ঘটনা। পুলিশের সার্জেন্ট সিএনজি চলাচলে বাধা দিলে আজ এই ঘটনা ঘটে। তিনি বলেন, আজকের ঘটনার জন্য শফিকুল ইসলামই দায়ী। এই ঘটনায় অপরাধীদের বিরুদ্ধে সরকারী কাজে বাধা, গাড়ী ভাঙচুর ও পুলিশকে মারধোর করার অভিযোগে ভৈরব হাইওয়ে থানায় পুলিশ বাদী হয়ে একটি মামলা দায়েরের প্রস্ততি চলছে বলে জানান তিনি।

পিবিডি/পি.এস

ভৈরব,কিশোরগঞ্জ,মহাসড়ক,পুলিশের গাড়িতে হামলা,সিএনজি
apps
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত